রাজবাড়ী, ১৫ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২

ঐতিহ্যবাহী ব্যবসা প্রতিষ্ঠান

কালুখালীত ওয়াজেদ আলী ফাইভ স্টারে ৪১তম পাট ক্রয় কার্যক্রম উদ্বোধন

প্রকাশ: ২ জুলাই, ২০২২ ২:৪২ : অপরাহ্ণ

প্রিন্ট করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক॥রাজকন্ঠ ডট কম


রাজবাড়ীর কালুখালীতে ঐতিহ্যবাহী ব্যবসা প্রতিষ্ঠান মেসার্স ওয়াজেদ আলী ফাইভ স্টারে ৪১তম পাট ক্রয়ের উদ্বোধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।
৩০ জুন সকালে রতনদিয়া বাজারস্থ স্বাধীনতার পরবর্তী ঐতিহ্যবাহী ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে প্রতিবছরের ন্যায় মেসার্স ওয়াজেদ আলী ফাইভ স্টারে ৪১ তম পাট ক্রয় উদ্বোধন হয়েছে।
পাট ক্রয়ের শুরুতে দোয়ার অনুষ্ঠান এর মধ্য দিয়ে এ বছরের পাঠ করে যাত্রা শুরু করেন এ সময় উপস্থিত ছিলেন গোল্ডেশিয়া জুট মিলের জি এম বেলায়েত হোসেন, পার্সেস কর্মকর্তা সজল চৌধুরী, রতনদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আবুল কাশেম মন্ডল, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জাকির হোসেন মোল্লা,আলামিন জুট মিলের এমডি জিএম এজিএম অগ্রণী ব্যাংক, সোনালী ব্যাংক, ইউনিয়ন ব্যাংক, রূপালী ব্যাংক, কৃষি ব্যাংক, আইএফসি ব্যাংকের ব্যবস্থাপকবৃন্দসহ বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মুজিবুর রহমান, হাফেজ আব্দুল মালেক, মুনায়েম হোসেন, তনয় চক্রবর্তী, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জাকির হোসেন মোল্লা, সোনাপুর বাজারের বিশিষ্ট পাট ব্যবসায়ী কায়েস হোসেন, কাজী শফিকুল হোসেন, মানিক,নারুয়া বাজারের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী হুমায়ুন,রতনদিয়া বাজার বণিক সমিতির সভাপতি ইমদাদুল হক দুদু, সাধারণ সম্পাদক রনজয় বসু প্রমুখ।

বিশিষ্ট পাট ব্যবসায়ী মোনায়েম হোসেন খান বলেন, এই প্রতিষ্ঠানটি দীর্ঘ ৪১ বছর ধরে এখানে সুনামের সাথে অত্যন্ত সততার মাধ্যমে পাট ব্যবসা করে আসছেন ওয়াজেদ আলী বিশ্বাস।আমারা এখানে ন্যায্য মূল্যে নগদ টাকায় সব সময়ের জন্যই পাট দিয়ে থাকি, এখানে পাট ওজনে কোন কম বেশি হয় না টাকা নিয়ে কোন ঝামেলা নেই।

পাট দিতে আসা কৃষক সিদ্দিকুর রহমান বলেন, এখানে আমরা সরাসরি কৃষক হয়ে এই বড় ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে পাট দিতে পারি এবং সেটা নগদ টাকায় ওজনের ক্ষেত্রেও কোন ঝামেলা হয় না টাকা নিয়েও কখনো ঘোরানো হয় না দামও ভালো দেয়া হয় অন্যান্য জায়গার থেকে সেজন্য আমরা সবাই খুশি বিশেষ করে খুশি যে এখানে সরাসরি আমার মত কৃষকের কাছ থেকে পাঠ করে করা হয়।

ফাইভ স্টারের সত্ত্বাধিকারী হাজী ওয়াজেদ আলী বিশ্বাস বলেন, প্রতি বছরের ন্যায় এবারও পাট ক্রয় কার্যক্রম উদ্বোধন করা হলো। ৪১ তম উদ্বোধন কালে যারা আমাকে সার্বিক সহযোগিতা করেছেন তাদের প্রতি ধন্যবাদ এবং কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। তিনি বলেন আমি এই প্রতিষ্ঠানে সততা ও নিষ্ঠার সাথে দীর্ঘ ৪১ বছর ব্যবসা করে যাচ্ছি এখানে নগদ টাকায় সরাসরি কৃষক ফড়িয়া ও বেপারী থেকে পাট বিক্রয় করার সুযোগ পাই। এ সময় তিনি সবার কাছে দোয়া চেয়ে বলেন তিনি যেন সুস্থ থেকে এলাকার পাট ব্যবসায়ী কৃষক ও ফড়িয়াদের কাছ থেকে ন্যায্য মূল্যে সঠিক ওজনে সততার সাথে পাট ক্রয় বিক্রয় করতে পারি।
উল্লেখ্য এখানে লক্ষ্য করা যায় দীর্ঘদিন ধরেই অত্যন্ত সুনামের সাথে দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে মিলের লোক সরাসরি এসে পাট ক্রয় করে সেটা থেকে সুতা সহ বিভিন্ন পাটের জিনিস তৈরি করে দেশে-বিদেশি অর্থ উপার্জন করে থাকি। এ বছর পাটের দাম ধরা হয়েছে ১৮০১ টাকা।
পাট ক্রয় উদ্বোধনকে কেন্দ্র করে সকাল ১১টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে আগত মিল মালিক পাট ব্যবসায়ী ফড়িয়া কৃষক সহ আমন্ত্রিত বিভিন্ন শেনি পেশার প্রায় ২ হাজার লোকের দিনব্যাপী মেহমানদারী করানো হয়।