রাজবাড়ী, ১২ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, রোববার, ২৬ জুন ২০২২

জৌকুড়া-নাজিরগঞ্জ নৌরুট

পদ্মার পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় সড়ক ও পন্টুনের র‌্যাম পানির নিচে, ফেরি চলাচল বন্ধ!

প্রকাশ: ১৮ জুন, ২০২২ ৯:০২ : অপরাহ্ণ

প্রিন্ট করুন

॥ জহুরুল ইসলাম হালিম ॥ রাজকন্ঠ ডট কম

পদ্মার পানি বৃদ্ধি পেয়ে ফেরি ঘাটের পন্টুনের র‌্যাম ও সড়ক পানির নিচে ডুবে যাওয়ায় রাজবাড়ী সদর উপজেলার পদ্মা নদীর ধাওয়াপাড়ার জৌকুড়া-নাজিরগঞ্জ নৌরটে ফেরি চলাচল বন্ধ ঘোষণা করেছে রাজবাড়ী সড়ক ও জনপথ বিভাগ (সওজ)। গত বৃহস্পতিবার থেকে এ নৌরুটে ফেরি চলাচল বন্ধ করা হয়। ফলে এ নৌরুট ব্যবহারকারী যানবাহন ও যাত্রীরা পড়েছেন চরম বিপাকে। তবে এ নৌরুটের যাতায়াত ব্যবস্থা সচল করতে পন্টুন ও ঘাটের কাজ করছে সড়ক ও জনপথ বিভাগ।

জানা গেছে, রাজবাড়ীর ধাওয়াপাড়া জৌকুড়া ও পাবনার নাজিরগঞ্জ নৌরুটের ফেরি সার্ভিসটি রাজবাড়ী সড়ক বিভাগের আওতায় পরিচালিত হয়। প্রতিদিন এ রুট দিয়ে যাত্রীবাহী পরিবহনের পাশাপাশি ছোট গাড়ি, পণ্যবাহী ট্রাক ও কাভার্ডভ্যান পারাপার হয়ে থাকে। দেশের উত্তরাঞ্চলের সাথে দক্ষিণাঞ্চলের সহজ ও কম সময়ে সড়ক যোগাযোগের জন্য পদ্মার ধাওয়াপাড়া ঘাটে গত ২০০০ সাল থেকে রাজবাড়ী সড়ক ও জনপথ বিভাগের অধীনে ছোট দু’টি ফেরি দিয়ে এ ফেরি সার্ভিস চালু করা হয়। এরপর থেকে এ পথে চলাচলকারী যাত্রী ও যানবাহনের সংখ্যা বাড়লেও বাড়েনি ঘাটের মান। যার কারণে পানি কমলে নাব্যতা সংকট, বৃদ্ধি পেলে ঘাট সংকটসহ ছোট খাট কোন না কোন কারণে মাঝে মধ্যেই বন্ধ থাকে এ ঘাটের সকল কার্যক্রম।

এ নৌরুটটি বন্ধ থাকায় ভোগান্তিতে পড়েছেন যাত্রীরা। অতিরিক্ত ভাড়া দিয়ে ঝুঁকি নিয়ে ইঞ্জিনচালিত নৌকায় পদ্মা নদী পারাপার হচ্ছে সাধারণ মানুষ।

পাবনা যাওয়ার উদ্দেশ্যে রাজবাড়ীর জৌকুড়া ফেরিঘাটে এসে আইয়ুব আলী বলেন, নৌরুটটি বন্ধ আমাদের জানা ছিল না। রাজবাড়ী থেকে বৃষ্টির মধ্যে পরিবার-পরিজন নিয়ে জৌকুড়া ফেরিঘাটে এসে ইঞ্জিনচালিত নৌকায় নদী পার না হয়ে ফিরে যাচ্ছি, এখন আমাদের বিকল্প পথ ব্যাবহার করতে হবে।

ভ্যানচালক আলীম শেখ বলেন, ফেরি বন্ধ থাকার কারণে আমরা অতিরিক্ত ভাড়া দিয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ইঞ্জিনচালিত ট্রলারে নদী পাড়ি দিচ্ছি।

রাজবাড়ী সড়ক ও জনপথ বিভাগ সুত্রে জানাগেছে, পদ্মা নদীতে পানি বৃদ্ধির কারণে দুই দিন ফেরি চলাচল বন্ধ রয়েছে। ধাওয়াপাড়া-নাজিরগঞ্জ নৌরুট সচল করতে রাজবাড়ী সড়ক বিভাগ কাজ করছে। যে কারণে এ রুটে সাময়িকভাবে ফেরি চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছে।