রাজবাড়ী, ১৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, রোববার, ২৯ মে ২০২২

হাজার হাজার মানুষের ভালবাসায় চির নিদ্রায় নিজ গ্রামে শাহিত হলেন দানবীর রফিক উদ্দিন পান্না মিয়া

প্রকাশ: ৫ মার্চ, ২০২২ ৭:৫৪ : অপরাহ্ণ

প্রিন্ট করুন

॥মাসুদ রেজা শিশির॥রাজকন্ঠ ডট কম


হাজার হাজার মানুষের ভালবাসা নিয়ে চির নিদ্রায় শাহিত হলেন দানবীর ইঞ্জিনিয়ার এ.কে.এম. রফিক উদ্দিন পান্না মিয়া। শুক্রবার বিকাল ৩ টায় মরহুমের প্রিয় আঙ্গিনা কলিমহর জহুরুন্নেছা শিক্ষা নগরীর মাঠে শেষ নামাজে জানাযা অনুষ্ঠিত হয়। জানাযা নিজ গ্রাম কলিমহর সার্বজনীন কবর স্থানে মরহুম ইঞ্জিনিয়ার এ.কে.এম. রফিক উদ্দিন পান্না মিয়াকে দাফন করা হয়। জানাযার নামাজে হাজার হাজার মানুষ উপস্থিত হয়ে ইঞ্জিনিয়ার এ.কে.এম. রফিক উদ্দিন পান্না মিয়ার রুহের মাগফিরাত কামনা করেন।

জানাযার নামাজের আগে রাজবাড়ী জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি রাজবাড়ী-২ আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ জিল্লুল হাকিম এমপি ইঞ্জিনিয়ার এ.কে.এম. রফিক উদ্দিন পান্না মিয়ার বাড়ীতে উপস্থিত হয়ে তার পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জানান।

জানাযা পূর্বে কফিনে শেষ শ্রদ্ধা নিবেদন করেন পাংশা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ ফরিদ হাসান ওদুদ, কলিমহর জহুরুনেচ্ছা শিক্ষা নগরীতে অবস্থিত শিক্ষা প্রতিষ্টানের প্রধানগন, কলিমহর মহাবিদ্যালয়, মাছপাড়া ডিগ্রি কলেনজ, কলিমহর খলিল উদ্দিন মিয়া দাখিল মাদ্রাসা, গোপালপুর কলেজিয়েট স্কুল, হোসেনডাঙ্গা নিলুফার রফিক উচ্চ বিদ্যালয়, কলিমহর বাজার বনিক সমিতি, সাজুরিয়া জেহরা জেরিন উচ্চ বিদ্যালয়, পাংশার সৈয়দ বায়তুল্লাহ কিন্ডার গার্ডেন, রহমাতুন্নেচ্ছা শিক্ষা উন্নয়ন ফাউন্ডেশন পাতুরিয়া, কসবামাজাইল ইউনিয়ন মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, প্রান্তিক জনকল্যান সংস্থা ভাতশালা, নাট্যালোক পাংশা, হাট বনগ্রাম উচ্চ বিদ্যালয়, বার পল্লী মহাশ্বান, কলিমহর ইউনিয়ন মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, ডি.ডি.সি. লিঃ কলিমহর প্রকল্পের কর্মকর্তাগনসহ বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন।

জানাযার নামাজ পূর্বে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন ইঞ্জিনিয়ার এ.কে.এম. রফিক উদ্দিন পান্না মিয়া’র বড় ছেলেন এ,কে, এম নাফিজ উদ্দিন মিয়া, রাজবাড়ী জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ ফকীর আব্দুল জব্বার, সাবেক এমপি আব্দুল মতিন মিয়া, পাংশা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ ফরিদ হাসান ওদুদ প্রমুখ। জানাযায় খোকসা পৌর মেয়র, পাংশা উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ জালাল উদ্দিন বিশ্বাস, রহমাতুন্নেচ্ছা শিক্ষা উন্নয়ন ফাউন্ডেশনের পরিচালক মোঃ জাহিদুল ইসলাম, যশাই ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবু হোসেন খান, কসবামাজাইল ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মোঃ কামরুজ্জামান খান, কলিমহর জহুরুন্নেচ্ছা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক (ভারপ্রাপ্ত) মোঃ মজিবর রহমান মাস্টারসহ কয়েক হাজার মানুষ ইঞ্জিনিয়ার এ.কে.এম. রফিক উদ্দিন পান্না মিয়ার নামাজে জানাযায় উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত ঃ ঢাকাস্থ ডেভলপমেন্ট ডিজাইন কনসালট্যান্ট লিমিটেড (ডিডিসি)-এর ম্যানেজিং ডিরেক্টর ও রাজবাড়ীর পাংশা উপজেলার কলিমহর জহুরুন্নেছা শিক্ষানগরীর প্রতিষ্ঠাতা ইঞ্জিনিয়ার এ.কে.এম. রফিক উদ্দিন পান্না মিয়া (৮০) বৃহস্পতিবার (৩ মার্চ) সকালে ঢাকার ইউনাইটেড হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, এক মেয়ে ও দুই ছেলে সন্তান সহ অসংখ্য আতœীয় স্বজন রেখে গেছেন। ইঞ্জিনিয়ার এ.কে.এম. রফিক উদ্দিন পান্না মিয়া অসংখ্য শিক্ষা প্রতিষ্টান গড়ে তুলেছেন, বানিয়েছিলেন স্কুল কলেজ মাদ্রাসা, মসজিদ, মহা বিদ্যালয়, হাসপাতাল, এতিম খান। তিনি একজন দানবীর হিসাবে পরিচিত অসংখ্য মানুষের আর্থিক উপকার করেছেন তিনি এলাকার শতশত বেকার যুবকদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করেছেন, অনেক দারিদ্র পিতার মেয়েদের নিজ খরচে বিয়ে দিয়েছেন এই মহান মানুষটি।