রাজবাড়ী, ৮ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, বৃহস্পতিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১

আশুলিয়ায় নির্মিত হচ্ছে ‘মুজিব শতবর্ষ গণ পাঠাগার’

প্রকাশ: ২ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ১১:২২ : অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক, আশুলিয়া।  

রাজধানীর উপকন্ঠ সাভারের আশুলিয়া, যেই অঞ্চলটিকে শিল্পাঞ্চল হিসেবেই বেশি চিনে মানুষ। দেশের সবচেয়ে বড় তৈরি পোশাক শিল্প এলাকা ‘ডিইপিজেড’ এখানেই অবস্থিত। এর একটি অংশ ইয়ারপুর ইউনিয়ন পরিষদ। এই ইউনিয়ন পরিষদের অন্যতম সদস্য, ৬ নং ওয়ার্ডের সফল মেম্বার আবু তাহের মৃধা। যিনি মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষ্যে কিছুদিন আগে তার ওয়ার্ডের একটি গণ পাঠাগার নির্মাণের কাজ শুরু করেছেন। যা ইত্যি মধ্যে ৮০ ভাগ সম্পুর্ণ কিংবা দৃশ্যমান হয়েছে।

আশুলিয়ার ইয়ারপুর ইউনিয়নের সকল বইপ্রেমীদের জন্য ‘মুজিব শতবর্ষ গণ পাঠাগা’ নামের এই পাঠাগারটি প্রতিষ্ঠার জন্য কঠোর পরিশ্রমী করছেন ইয়ারপুর ইউনিয়ন পরিষদের ৬ নং ওয়ার্ডের মেম্বার আবু তাহের মৃধা।

বৃহস্পতিবার সকালে সাংবাদিকদের সাথে আলাপ কালে তিনি জানান, এই পাঠাগারে শোভা পাবে, মুক্তিযোদ্ধার পক্ষের বই, বঙ্গবন্ধুর ও তাজ উদ্দিন আহমেদ এর আত্মজীবনী মূলক বই সহ দেশ-বিদেশের সাহিত্য ও ইতিহাসমূলক বই। এছাড়াও থাকবে, শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, কাজী নজরুল ইসলাম, জীবনানন্দ দাশ এর গল্প, কবিতার বইসহ স্বাস্থ্য-সুরক্ষা, রম্যরস ও শৈশব-কৈশোরের শিক্ষামূলক বই।

এই ইউপি সদস্য আরও জানান, গত ২০/২৫ বছর আগে তিনি নিজ বাড়িতে একটি ছোট পাঠাগার নির্মাণের চেষ্টা করেছিলেন, নানা সমস্যার কারণে তা আর গড়ে তুলতে পারেননি তিনি। স্কুলের এই পরিত্যাক্ত জায়গা দেখে তিনি ২০ বছর আগের সেই ইচ্ছা শক্তিকে কাজে লাগাতে পাঠাগার নির্মাণের কাজে নেমে পড়েন।

যেই জায়গায় শিশু-কিশোররা এক সময় মাদকদ্রব্য সেবন করতো, সেই জায়গায় এখন নির্মিত হচ্ছে “মুজিব শতবর্ষ গণ পাঠাগার”। এ নিয়ে এলাকার বই প্রেমীদের মাঝে আনন্দ বিরাজ করছে।

আবু তাহের মৃধা বলেন, শিক্ষার্থীদের মোবাইল ফোন আসক্তি থেকে দূরে রাখতে ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় নতুন প্রজন্মকে জ্ঞানভিত্তিক উদ্বুদ্ধ করতে এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

এ সময় তিনি আরও বলেন, যদি কোনো লেখক বা শুভাকাঙ্খী এই পাঠাগারে বই দিতে চান, তা সাদরে গ্রহন করা হবে। যেহেতু আমি নিজ অর্থায়ণে এটা করেছি সেহেতু আপাদত নগদ অর্থ, অনুদান কিংবা ত্রাণ গ্রহন করা হচ্ছে না।