রাজবাড়ী, ১০ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১

নেতা জেলে কর্মীরা ব্যস্ত সাংগঠনিক কাজে..

হাবাসপুরের পথে প্রান্তে ফজলু বিশ্বাসের পক্ষে শোক দিবসের ব্যানার ছেয়ে গেছে

প্রকাশ: ৪ আগস্ট, ২০২১ ৯:০৬ : অপরাহ্ণ

॥মাসুদ রেজা শিশির ॥রাজকন্ঠ ডট কম


রাজবাড়ির পাংশা উপজেলার হাবাসপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক চরআফড়া উচ্চ বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি আ.লীগ নেতা মোঃ ফজলুল হক বিশ্বাসকে হয়রানী মুলক মামলায় গ্রেফতারের পর থেকেই সোচ্ছার হাবাসপুর ইউনিয়নের সাধারণ মানুষ। বিভিন্ন সময় ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ফজলুল হক বিশ্বাসের পক্ষে মাঠে প্রচারনা চালিয়ে যাচ্ছেন বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ। মুক্তির দাবীতে সাংবাদিক সম্মেলন, শহর জুড়ে পোষ্টারিং এবার হাবাসপুর ইউনিয়নের প্রতিটি গুরুত্বপূর্ন স্থানে বাঙালী জাতির মহানায়ক জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাৎ বার্ষিকী উপলক্ষে জাতীয় শোক দিবসে হাবাসপুর ইউনিয়ন বাসির পক্ষ থেকে ব্যানার ফেসটুন টানিয়েছেন নিবেদিত নেতা কর্মীরা।

হাবাসপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক আব্দুল মতিন বলেন আমাদের নেতা ফজলু বিশ্বাসকে হয়রানী মূলক মামলা দিয়ে জেলে রাখা হয়েছে, আমরা তার পক্ষে ইউনিয়ন বাসিকে সাথে নিয়ে মাঠে আছি, ১৫ আগষ্টের ব্যানার ফেসটুন দিয়েছি, আমরা শতভাগ আশা করি এই গভীর সড়যন্ত্র থেকে দ্রুত সময়ের মধ্যে আমাদের প্রাণের নেতা ফজলু বিশ্বাস সকল বাধা উপেক্ষা করে আমাদের মাঝে আসবেই ইনশাআল্লাহ।

ইউনিয়ন আ.লীগের সমাজ কল্যাণ ও ত্রাণ বিষয়ক সম্পাদক আবুল কাশেম সরদার বলেন নেতা নেই আমরা তো আছি ফজলু বিশ্বাসের সালাম আমরা মানুষের দ্বারে দ্বারে পৌছে দেওয়ার লক্ষ নিয়েই কাজ করে যাচ্ছি। সড়যন্ত্র মূলক এ মামলার প্রতিবাদে ও নিঃশর্ত মুক্তির দাবীতে পাংশা শহর ও হাবাসপুর ইউনিয়নের প্রতিটি এলাকায় পোস্টার লাগানো হয়েছে। ইতি পূর্বে ফজলুল হক বিশ্বাসের মুক্তির দাবীতে পরিবার ও ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের পক্ষ থেকে সংবাদ সম্মেলন করা হয়েছিল।

ফজলুল হক বিশ্বাসের ভাই আবু সাল্লেক, বলেন ভাইয়ের অবর্তমানে আমরা কাজ করে যাচ্ছি আমার ভাই হাবাসপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের নেতা কর্মীদের সাথে নিয়ে সব সময় পাশে থাকতেন আমরাও চেষ্ঠা করে যাচ্ছি সে ধারা অব্যাহত রাখতে।

প্রসঙ্গত তিনি আরো বলেন আমার ভাই ফজলু বিশ্বাসকে গত ২৬ জুন গভীর রাতে ঘুম থেকে ডেকে তুলে নিজ বাড়ী থেকে আমার ভাইকে তুলে নিয়ে যায় র‌্যাব-১২ এর একটি আভিযানিক দল। দীর্ঘ সময় র‌্যাব-১২ এর সদস্যরা ফজলুল হক বিশ্বাসের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে কিছু না পেয়ে তাকে গ্রেফতার করে নিয়ে যায়। এ সময় আশপাশের প্রতিবেশীরা লুঙ্গি ও হাফ শার্ট পরিহিত অবস্থায় খালি হাতে ফজলুল হক বিশ্বাসকে নিয়ে যেতে দেখেছেন। পরবর্তীতে ২দিন পর তাকে সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর এলাকা থেকে অস্ত্র-গুলিসহ তাকে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। যাহা সম্পূর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট। এ মামলার প্রেক্ষিতে এলাকাবাসী ও তার পরিবার ঘটনার সঠিক তদন্ত সাপেক্ষে বিচার কামনা করেন।