রাজবাড়ী, ৯ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, শনিবার, ২৪ জুলাই ২০২১

করোনাকালীন রাজবাড়ী হেল্পলাইন ফাউন্ডেশন এর “জরুরি খাদ্য সহায়তা সেল “

প্রকাশ: ১০ জুলাই, ২০২১ ৯:০৪ : অপরাহ্ণ

নিউজ ডেস্ক:রাজকন্ঠ ডট কম

আমরা সবাই চরম একটা সংকটকাল পার করছি । অক্সিজেন সংকট, নিম্ন আয়ের মানুষের খাদ্য সংকট, করোনায় ঊর্ধ্বমুখী মৃত্যু হার । রাজবাড়ীও ধুঁকছে করোনায়, আমাদের স্বজনদের মৃত্যু ব্যথিত করছে আমাদের । রাজবাড়ী হেল্পলাইন ফাউন্ডেশন করোনায় মৃত রোগীর স্বজনদের সাথে সমব্যথী, গভীর শোক প্রকাশ করছে ।

করোনায় নিম্ন আয়ের মানুষের আয় নাই । অনেকের মুখে খাবার নাই । মুখ ফুটে বলতে পারছে না লজ্জ্বায় । নিম্নবিত্ত মানুষগুলো হয়তো সাহায্য পাচ্ছেন, তবুও তা অপ্রতুল। মধ্যবিত্ত মানুষগুলো লজ্জ্বায় বলতে পারছে না, পেটে পাথর বাঁধার মতো সহ্য করে যাচ্ছেন ক্ষুধার কষ্ট ।
আমাদের পেজের ইনবক্সে এমন আবেদন এসেছে এবং এই সম্পর্কিত পোস্টও আসছে গ্রুপে । ক্ষুধার্ত মানুষগুলোর হাহাকার । আমরা চেষ্টা করেছি পাশে থাকার ।

এই মহামারী সময়ে আমরা আমাদের শিকড়ের মানুষগুলো না খেয়ে থাকবে, সেটা জেনেও তাদের পাশে দাঁড়াবো না আমরা – এতটা অমানবিক আমরা হতে পারি না ।
আমরা তাদের পাশে দাঁড়াতে চাই । পাশে দাঁড়াবেন আপনিও । আমরা জানি এমন মানুষ অনেক আছেন – যারা মনে প্রাণে এই মানুষগুলোর পাশে দাঁড়াতে চান । তাদেরকে সুযোগ করে দিতে চাই আমরা । হ্যাঁ, আপনার মাধ্যমেই তাদের পাশে দাঁড়াতে চায় রাজবাড়ী হেল্পলাইন ফাউন্ডেশন ।

সম্পূর্ণ প্রক্রিয়াটি যেভাবে করতে চাই তার একটি রূপরেখাঃ

১ম ধাপঃ আবেদন
আমাদের যাদের খাবারের জন্য আর্থিক সহযোগিতা প্রয়োজন কিংবা আপনার পাশের কেউ যে অর্থের অভাবে না খেয়ে আছে তারা তাদের নাম, পেশা, মোবাইল নাম্বার, ঠিকানা, এবং সাথে তাদের সংকট এবং কি ধরণের সাহায্য দরকার – তা লিখে পাঠাবেন আমাদের পেইজ রাজবাড়ী হেল্পলাইন ফাউন্ডেশন এর ইনবক্সে অথবা Rajbari Helpline – রাজবাড়ী হেল্পলাইন গ্রুপে পোস্টের মাধ্যমে অথবা আমাদের হটলাইন নাম্বারে ফোন করে জানাবেন ।
আমাদের দায়িত্বশীল ভলান্টিয়াররা আবেদন বিবেচনা করে গ্রুপে রিকুইজেশন পোস্ট সাবমিট করবে।
২য় ধাপঃ তহবিলের অনুরোধ
আমরা ১ম ধাপের প্রয়োজনের কথা জানিয়ে এবং সাহায্য গ্রহীতার নাম গোপন রেখে গ্রুপে একটা পোস্ট করবো।
৩য় ধাপঃ সংগ্রহ
স্বেচ্ছায় আগ্রহী সাহায্যদাতা ২য় ধাপে করা পোস্টে কমেন্ট অথবা আমাদের পেইজে বার্তা দিয়ে তার আগ্রহের কথা জানাবে । আমরা তাকে কিভাবে অর্থ সহযোগিতা করা যাবে তার প্রক্রিয়া সম্পর্কে অবগত করবো এবং ডোনেশন সাহায্য গ্রহীতার পক্ষ থেকে গ্রহণ করবো ।
আমরা মিনিমাম একমাসের বাজার করে দিতে চাই এই মানুষগুলোকে । তাই আমরা ডোনেশন এমাউন্টের মিনিমাম থ্রেশহোল্ড ধরেছি ৩০০০ টাকা এবং এর উর্ধ্বে দাতার ইচ্ছে এবং সামর্থ্য অনুযায়ী।
৪র্থ ধাপঃ অনুদানের প্রক্রিয়াকরণ
আমরা গৃহীত অর্থ সাহায্য আমাদের ওই মানুষগুলোর নিকট পাঁচ উপজেলায় কাজ করা আমাদের স্বেচ্ছাসেবী টিমের মাধ্যমে হস্তান্তর করবো ।
৫ম ধাপঃ
স্বচ্ছতার লক্ষ্যে, ৩য় ধাপে যে অর্থ আমরা গ্রহণ করেছি তার প্রমাণ স্বরূপ একটি স্ন্যাপশট আমরা দাতার পরিচয়সহ বা পরিচয় ছাড়া গ্রহীতার নিকট প্রদান করবো । এবং দাতা যদি চান গ্রহীতার পরিচয় গোপন রেখে ফেসবুক পোস্টের মাধ্যমে তা আমরা জানাবো ।

রাজবাড়ী আমাদেরকে অনেক দিয়েছে । রাজবাড়ীর প্রতি আমাদের দায় আমরা এড়াতে পারি না । এই সংকটময় মূহুর্তে এই মাটির মানুষগুলো না খেয়ে থাকবে, তা জেনেও যদি আমরা তার পাশে না দাঁড়াই – তা পাপ । এই দুঃসময়ে কার রাজবাড়ীর মানুষের পাশে দাঁড়ানোর কথা ছিলো, কে দাঁড়ায়নি, সরকার কতটুকু করেছে বা করেনি – এইসব বিতর্ক পাশে রেখে আপনার দায়িত্বটা কাঁধে নিন ।

আপনাদের সবার সহযোগিতা কামনা করছি আমরা ।

ধন্যবাদ, রাজবাড়ী হেল্পলাইন ফাউন্ডেশনের সম্মানিত পৃষ্ঠপোষক এবং শুভাকাঙ্ক্ষীবৃন্দ, প্রতিষ্ঠাতা সদস্যবৃন্দ, সকল স্বেচ্ছাসেবীবৃন্দ, ফাউন্ডেশনের আহবায়ক কমিটির আহবায়ক এবং সদস্যসচিব সহ সকল সদস্য, আমাদের সোনার মানুষগুলো যাদের সহযোগিতায়ই আমাদের পথচলা, এবং গ্রুপের প্রত্যেক সদস্য যারা প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষভাবে রাজবাড়ীর মানুষের জন্য করে যাচ্ছেন এই দুঃসময়ে ।

আমাদের দেখা হোক মৃত্যু হেরে গেলে
আমাদের দেখা হোক আগের মতো করে
আমাদের দেখা হোক সুস্থ শহরে…

আমাদের এই করুণ দুঃসময় কেটে যাক দ্রুত ।
এই কামনায় –

ডা. সুমন হুসাইন
প্রতিষ্ঠাতা এবং স্বেচ্ছাসেবী
রাজবাড়ী হেল্পলাইন ফাউন্ডেশন