রাজবাড়ী, ১০ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১

গোয়ালন্দে গৃহবধুর রহস্যজনক মৃত্যু!মায়ের দাবী মেয়েকে হত্যা করা হয়েছে।

প্রকাশ: ২২ মে, ২০২১ ১১:২২ : অপরাহ্ণ

॥ জহুরুল ইসলাম হালিম॥রাজকন্ঠ ডট কম

রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে নিজ বাড়ির বাঁশ বাঁগানে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে আকলিমা বেগম (৩২) নামের এক গৃহবধু আত্মহত্যা করেছে। শনিবার (২২ মে) গোয়ালন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করে গোয়ালন্দ ঘাট থানা পুলিশ।

জানা গেছে, শুক্রবার (২১ মে) দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে এ ঘটনা ঘটে। সে উপজেলার উজানচর ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ড বাহাদুরপুর গ্রামের আক্কাস মোল্লার স্ত্রী এবং একই ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের নবুওছিমুদ্দিন পাড়া মো. কালাম শেখের মেয়ে। তার ১২ বছর বয়সী ১টি ছেলে ও ১৫ বছর বয়সি ১টি মেয়ে রয়েছে।

আকলিমাকে হত্যা করে ঝুঁলিয়ে রাখা হয়েছে! না পারিবারিক অশান্তি সইতে না পেরে আত্মহত্যা করেছে তা নিয়ে রহস্যের তৈরি হয়েছে।

তবে আকলিমার মা অভিযোগ করে বলেন, আমার মেয়েকে হত্যা করে বাঁশ ঝাড়ে ঝুঁলিয়ে রাখা হয়েছে। আমার মেয়ে শান্ত প্রকৃতির হওয়ায় বিয়ের পর থেকে মাঝে মধ্যেই তাকে বিনা কারণে মারধোর করতো। গত কয়েকদিন আগে পাশের বাড়ির এক গৃহবধুর সাথে আক্কাসের পরকীয়ার বিষয় জানাজানি হলে তাদের সংসারে চরম অশান্তির সৃষ্টি হয়। এসময় তিনি আহাজারি করতে করতে বলেন, আক্কাস আমার মেয়েকে হত্যা করেছে, আমি ওর ফাঁসি চাই।

নিহতের স্বামী আক্কাস মোল্লা পরকীয়ার বিষয় নিয়ে অশান্তির কথা স্বীকার করে বলেন, গত কয়েকদিন আগে এলাকার কিছু বখাটে ছেলে পাশের বাড়ির এক গৃহবধুর সাথে আমাকে নিয়ে মিথ্যা রটনা রটায় এ বিষয়টা নিয়ে আমার স্ত্রী মানসিক ভাবে ভেঙে পড়ে। ঘটনার দিন রাতে খাওয়া দাওয়া করে আমরা সকলেই ঘুমিয়ে পড়ি। রাত ২টার দিকে ঘুম ভেঙে গেলে দেখি পাশে আমার স্ত্রী নেই। পরে খোজাখুজির এক পর্যায়ে দেখি যে সে বাড়ির পাশে বাঁশ বাঁগানে বাঁশের সাথে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে ঝুঁলে আছে। এসময় আমরা দ্রুত তাকে উদ্ধার করে গোয়ালন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।

এ প্রসঙ্গে গোয়ালন্দ ঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ্ আল তায়াবীর বলেন, নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে সুরতহাল প্রতিবেদন শেষে ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট এবং আত্মহত্যার বিষয়ে কোন অভিযোগ পেলে পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া হবে।