রাজবাড়ী, ১০ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১

দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথে

স্বাস্থ্যবিধির তোয়াক্কা নাই, গাদাগাদি করে সাধারণ যাত্রীদের ফেরি পার

প্রকাশ: ১৮ মে, ২০২১ ৭:১৮ : অপরাহ্ণ

॥জহুরুল ইসলাম হালিম ॥রাজকন্ঠ ডট কম


ছুটি শেষ হয়েছে ৩দিন অর্থাৎ ঈদের ৫ম দিনেও নাড়ির টানে বাড়ি যাওয়া মানুষগুলো কর্মস্থলে ফিরছেন। রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথের ফেরিঘাট এবং মহাসড়কগুলোতে ফেরার লড়াই ছিলো চোখেপড়ার মতো। ফেরিঘাটগুলোতে হাজার হাজার মানুষের স্রোত থাকলেও সবকটি ফেরি চলাচল করায় স্বস্তিতে পারাপার হচ্ছে মানুষ। তবে ফেরিগুলোতে স্বাস্থ্যবিধির তোয়াক্কা না করে ঠাসাঠাসি গাদাগাদি করে যে যেভাবে পারছেন ফেরিতে উঠছেন।

এদিকে গণপরিবহন বন্ধ থাকায় গন্তব্যে ফিরতে অবর্ণনীয় দূর্ভোগ পোহাতে হয়েছে যাত্রীদের। মহাসড়কগুলোতে অতিরিক্ত ভাড়া দিয়ে ভেঙে ভেঙে মোটরসাইকেল, প্রাইভেটকার, মাইক্রোবাস, মিনি পিকআপ এবং ইজিবাইক, মাহেন্দ্র, অটোরিক্সা ও অটোভ্যানে করে ঘাটে এসে ফেরিতে পদ্মা পার হয়ে ঢাকাসহ আশপাশের জেলায় ফিরছে। দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথের ফেরিঘাট গুলো এবং ঢাকা-খুলনা মহাসড়ক এলাকায় সরেজমিন ঘুরে এমন চিত্র দেখা গেছে।

সাতক্ষিরা থেকে ঢাকাগামী বেসরকারি কোম্পানির চাকরীজীবি রফিকুল ইসলাম বলেন, , ঈদের আগে বাড়িতে আসার সময় স্ত্রী সন্তানকে নিয়ে বাড়িতে ঈদ করতে এসেছিলাম পথে পথে চরম ভোগান্তি ভোগ করতে হয়েছে। তাই স্ত্রী সন্তানকে রেখেই ঢাকায় যাচ্ছি, আসার সময় ভেঙে ভেঙে অতিরিক্ত ভাড়া দিয়ে ঘাটে এসে পৌঁছেছি। তবে ফেরিতে ভীড় থাকলেও ফেরির অপেক্ষায় থাকতে হয়নি।

খুলনা থেকে গাজীপুরগামী গার্মেন্টসকর্মী রাবেয়া খাতুন জানান, বাড়িতে আসার সময়কার দূর্ভোগ বেশী থাকলেও ঢাকায় যাওয়ার সময় তেমন কোন ভোগান্তির স্বীকার হতে হয়নি। তবে পথে পথে অতিরিক্ত ভাড়া দিতে হয়েছে।

বিআইডাব্লিউটিসির দৌলতদিয়া ঘাট শাখার সহকারী মহাব্যবস্থাপক মো. ফিরোজ শেখ জানান, আজও ঘাটে যাত্রীদের চাপ রয়েছে। তবে যাত্রী ও যানবাহনের চাপ থাকলেও দৌলতদিয়া প্রান্তে পারের অপেক্ষায় থাকতে হচ্ছে না। নাই কোন সিরিয়াল। এরুটে ছোট বড় মিলে ১৬ টি ফেরি চলাচল করছে।