রাজবাড়ী, ১০ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১

মৃগীতে স্কুল শিক্ষকের প্রলোভনে সর্বশান্ত তরুনী ॥ থানায় অভিযোগ

প্রকাশ: ১৮ মে, ২০২১ ৮:৪১ : অপরাহ্ণ

॥ মাসুদ রেজা শিশির ॥ রাজকন্ঠ ডট কম

রাজবাড়ীর কালুখালী উপজেলার মৃগী বহুমূখী উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আবু জালালের মিথ্যা আশ্বাস আর নানা মূখি প্রলোভনে সর্বশান্ত হয়েছে একই এলাকার আব্দুল হালিমের মেয়ে। চাকুরীর প্রলোভন নিয়ে বিভিন্ন সময় ওই শিক্ষক ওই তরুনীকে নিয়মিত ভাবে ভোগ করে আসছিল। ওই শিক্ষক উপজেলার মৃগী ইউনিয়নের পবন পাচবাড়ীয়া গ্রামের অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ সদস্য আব্দুর রহমান অরফে পুকারের ছেলে। শিক্ষক আবু জালাল দির্ঘ দিন ধরে ওই তরুনীর সাথে অবৈধ ভাবে মেলামেশা করে আসছিল, সম্প্রতি ওই তরুনীর সাথে অবৈধ মেলামেশার অভিযোগে স্থানীয়রা আটক করে উত্তম মাধ্যম দিয়েছে,এর পর থেকেই ওই শিক্ষক গা ঢাকা দিয়েছে। এ ঘটনায় ওই তরুনী বাদী হয়ে জেলার কালুখালী থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে।

মঙ্গলবার সরেজমিনে ওই তরুনীর এলাকায় গিয়ে তার সাথে কথা হলে ওই তরুনী জানান আমি ৮ম শ্রেণীতে পড়াকালীন বিভিন্ন সয়ম ওই শিক্ষক নানা প্রলোভন দিয়ে আমার সাথে শারিরীক সর্ম্পক করে আসছে,এর পর আমাকে ঢাকায় প্রায় ৩ বছর রেখে বিভিন্ন সময় আমার সাথে মেলামেশা করেছে,আমাদের বাড়ীতেই বিভিন্ন সময় আমার সাথে শারীরিক সর্ম্পক করেছেন ওই শিক্ষক। সর্বশেষ গত ৩দিন আগে রাতে আমাদের বাড়ীতে এসে আমাদের টয়লেটের মধ্যে নিয়ে শারীরিক সর্ম্পক করেছে। সে আমাকে নানা ভাবে চাকুরীর প্রলোভন দিয়ে আসছেন সর্বশেষ আমাকে সরকারী চাকুরী দেওয়ার কথা বলেছে।

এদিকে স্থানীয় একাধিক ব্যক্তির সাথে কথা হলে তারা বলেন জালাল মাস্টার বিভিন্ন মেয়ের সরলতার সুযোগ নিয়ে তাদের সাথে অশ্লীল কাজ করে আসছে ইতি পূর্বেও এই জালাল মাস্টারকে নিয়ে গ্রাম্য শালিশ হয়েছে।
ওই তরুনীর মা জানান আমি আমার মেয়েকে বিয়ে দিয়েছিলাম সেখান থেকে নানা ভাবে প্রলোভন দিয়ে আমার মেয়েকে নিয়ে এসেছে ওই শিক্ষক নিজের টাকা দিয়ে আমার মেয়েকে ডিভোর্স দেওয়ায়ছে,আমি আমার মেয়ের জন্য ন্যায় বিচার দাবী করছি,ওই তরুনীর মা আরো বলেন ওই শিক্ষকের পরিবার প্রভাবশালী হওয়ায় আমাদের নানা ভাবে হুমকি ধুমকি দিচ্ছে কেন আমরা থানায় অভিযোগ দিয়েছি। আমি এ ঘটনার সুষ্ঠ বিচার দাবী করি।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে পবন পাচবাড়ীয়া গ্রামের অপর এক শিক্ষক বলেন নাম মাত্র একটি স্কুল খুলে এলাকার দরিদ্র মেয়েদের টার্গেট করে নানা ভাবে প্রলোভন দিয়ে তাদের স্কুলে ভর্তি করিয়ে তাদের সাথে শীলতাহানী করে আসছে ওই শিক্ষক।এতে অনেকেই লজ্জা ও ভয়ে মুখ না খুললেও পরবর্তীতে ওই স্কুল থেকে বিদায় নিয়ে অন্যত্রে চলে গেছে।
এ ব্যাপারে কালুখালী থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ মাসুদুর রহমান বলেন এ সংক্রান্ত একটি অভিযোগ পেয়েছি তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। ওই স্কুল শিক্ষক আত্বগোপনে থাকায় ও মুঠোফোন বন্ধ পাওয়ায় তার বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।