রাজবাড়ী, ১১ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, শুক্রবার, ২৫ জুন ২০২১

পাটুরিয়ায় ফেরি বন্ধ, মানুষের ভোগান্তি চরমে

প্রকাশ: ৮ মে, ২০২১ ২:০০ : অপরাহ্ণ

নিউজ ডেস্ক:রাজকন্ঠ ডট কম

করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে পাটুরিয়া দৌলতদিয়া নৌরুটে ফেরি চলাচল বন্ধ রেখেছে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন করপোরেশন (বিআইডব্লিটিসি)। দক্ষিণবঙ্গগামী অনেক যাত্রী এ সিদ্ধান্ত না জেনে পাটুরিয়া ঘাটে এসে ভোগান্তিতে পড়েছেন।

আজ সকাল ৬টা থেকে শিবালয় উপজেলার টেপড়া বাসস্ট্যান্ড থেকে উপজেলা প্রশাসন পাটুরিয়াগামী প্রাইভেটকার ফেরত পাঠাচ্ছেন। তবে এর আগেই অনেক গাড়ি রাতে পাটুরিয়া ঘাট এলাকায় এসে আটকা পড়েছেন। এছাড়া অনেকে যাত্রীই জানেন না ঘাট বন্ধ থাকবে। তবে সকালের দিকে যেসকল অ‌্যাম্বুলেন্স ও জরুরি যানবাহন অপেক্ষায় ছিলো তিনটি ফেরি দিয়ে দুপুর ১২টার পর সেগুলো পারাপারের ব্যবস্থা করেছে ঘাট কর্তৃপক্ষ। আর তিনটি ফেরির সাথে সহস্রাধিক যাত্রীও পার হয়েছে।

রোকসানা আক্তার নামের এক যাত্রী বলেন, ‘যশোর যাবো বলে ঘাটে এসেছি সকাল ৮টার দিকে। সাড়ে ১১টা বেজে গেলেও পাটুরিয়া দৌলতদিয়া নৌরুট পার হতে পারেনি। সঙ্গে শিশু বাচ্চারা থাকায় ভোগান্তি আরো বেড়ে গেছে।’

সুমন মিয়া নামের এক যাত্রী বলেন, ‘পরিবার পরিজন নিয়ে ঈদ করতে বাড়ি যাচ্ছি। ভেবেছিলাম ঈদের দুই তিন আগে চাপ পড়তে পারে তাই আগেই বাড়ি যায়। এখন ঘাটে এসে নিজেই চাপে পড়ে গেছি।’

বিআইডব্লিটিসি আরিচা কার্যালয়ের ডিজিএম মো. জিল্লুর রহমান জানান, শুক্রবার (৭ মে) সকালের দিকে পাটুরিয়া ঘাট এলাকায় সাধারণ যাত্রীদের চাপ বেড়ে যায়। জরুরি যানবাহনের সঙ্গে এসকল যাত্রীরাও পারাপার হয়। সকালের দিকে যাত্রীদের চাপ থাকায় পাটুরিয়া দৌলতদিয়া নৌরুটে ১৬টি ফেরি চলাচল করে। করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ শনিবার সকাল ৬টা থেকে ফেরি চলাচল বন্ধ রাখার নির্দেশনা দিয়েছে। তবে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে দিনে জরুরি যানবাহন ও অ‌্যাম্বুলেন্স পারাপার করা যাবে। আর সন্ধ্যার পর থেকে পচনশীল জরুরি পণ্যবাহী ট্রাক পারাপার করা হবে।