• বৃহস্পতিবার, ১৫ এপ্রিল ২০২১, ০৪:১৮ অপরাহ্ন

হিলি স্থলবন্দর: ভারত দিচ্ছে না পেঁয়াজ, নিচ্ছে চিড়া-গুড়

Reporter Name / ৯২ Time View
Update : শুক্রবার, ২ অক্টোবর, ২০২০

নিউজ ডেস্ক:রাজকন্ঠ ডট কম

দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দর দিয়ে ভারত থেকে পেঁয়াজ আসছে না।  তবে, পাথর ও কাঁচা মরিচবাহী ট্রাক প্রতিদিনই দেশে আসছে।  একইসঙ্গে ভারতে যাচ্ছে চিড়া, গুড়, রাইসব্র‌্যান্ড ওয়েল ও পানির পাম্প।

হিলি কাস্টমস সূত্রে জানা গেছে, স্থলবন্দর দিয়ে সেপ্টেম্বরে পাথর আমদানি হয়েছে ১ লাখ ১৭ হাজার ৫২০ মেট্রিক টন, কাঁচা মরিচ আমদানি হয়েছে ৫ হাজার ৪৩৬ মেট্রিক টন। আর পেঁয়াজ আমদানি হয়েছে ১০ হাজার ৪৬২ মেট্রিক টন।

বন্দরের আমদানি-রপ্তানিকারক গ্রুপের সভাপতি হারুন উর রশিদ হারুন বলেন, ‘সরকার অনুমোদিত সব ধরনের পণ্য এই বন্দরে আমদানি স্বাভাবিক রয়েছে।  এছাড়া, চিড়া, গুড়, রাইসব্র‌্যান্ড ওয়েল ও পানির পাম্প ভারতে যাচ্ছে। গত ১৪ সেপ্টেম্বর থেকে ভারত সরকার পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করে দেয়। তবে, দেশটির আমদানি-রপ্তানিকারকদের সঙ্গে কথা বলে জেনেছি, ১৪ সেপ্টেম্বর যে সব পেঁয়াজের এলসি করা রয়েছে, সেগুলো কিছু দিনের মধ্যেই রপ্তানির অনুমতি দেবে ভারত। ’

হারুন উর রশিদ হারুন বলেন, ‘দেশের বন্দরগুলোর এলসি করা প্রায় ৮০ হাজার মেট্রিক টন পেঁয়াজ ভারতে আটকা পড়ে আছে। আটকেপড়া পেঁয়াজ দেশে এলেই দাম অনেকটাই স্বাভাবিক হবে। এছাড়া, কিছুদিন পরই ভারত থেকে নতুন পেঁয়াজ আসবে, তখন দেশের বাজারে দাম আরও কমবে।’

পেঁয়াজ-কাঁচা মরিচ আমদানিকারক মনোয়ার হোসেন চৌধুরী বলেন, ‘প্রতিদিন নিয়মিত কাঁচামরিচ আমদানি করছি। তবে, ভারত পেঁয়াজ দিচ্ছে না।  গত ১৯ সেপ্টেম্বরে আটকেপড়া ৬ গাড়ি পেঁয়াজ এনেছি। কিন্তু ৫ দিন ভারতের পাইপলাইনে থাকায় বেশিরভাগ পেঁয়াজই পচে গেছে।  বাধ‌্য হয়ে ৫০ কেজি ওজনের প্রতি বস্তা মাত্র ১০০ টাকা দরে বিক্রি করেছি।  এখনো এলসি করা পেঁয়াজ ভারতে আটকে আছে।’

হিলি সিঅ‌্যান্ডএফ এজেন্ট শেরেকুল মুন্সী বলেন, ‘রাজশাহী বিসমিল্লাহ ফ্লাওয়ার মিল আমার মাধ্যমে পাথর আনে। গত সেপ্টেম্বরে বোল্ডার পাথর ৪ হাজার ৮০০ মেট্রিক টন ও ১৪৩২ মেট্রিক টন চিপ পাথর এনেছি। বোল্ডার পাথর ১৪ ডলার ও চিপ পাথর ১৩ ডলারে কেনা হয়েছে। ’ তিনি আরও বলেন, ‘সম্প্রতি এই বন্দর দিয়ে ভারত থেকে পাথর আমদানি বেড়েছে। ’

এসব বিষয়ে জানতে চাইলে হিলি কাস্টমসের রাজস্ব কর্মকার্তা সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘২০২০ সালের গত তিন মাসে হিলি স্থলবন্দরে ৮৪ কোটি ৭৮ লাখ ২৭ হাজার টাকা রাজস্ব আদায় করা হয়েছে।  এই বন্দরে আমদানি-রপ্তানি স্বাভাবিক রয়েছে। তবে, পেঁয়াজ আসছে না।’ পরবর্তী সময়ে ভারত অনুমতি দিলে পেঁয়াজ আমদানি শুরু হবে বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

Facebook Comments


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category

Recent Comments