রাজবাড়ী, ১৩ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০

প্রাথমিক-ইবতেদায়ী পরীক্ষা নিয়ে ৫ প্রস্তাব মন্ত্রণালয়ের

প্রকাশ: ১৯ আগস্ট, ২০২০ ৮:৫৩ : অপরাহ্ণ

নিউজ ডেস্ক:রাজকন্ঠ ডট কম

কোভিড-১৯ পরিস্থিতিতে প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী ও ইবতেদায়ী পরীক্ষা নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছে ৫ টি প্রস্তাব পাঠিয়েছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। করোনা ঝুঁকির মধ্যে এ বছর কেন্দ্রীয়ভাবে পরীক্ষা না নিয়ে নিজ নিজ বিদ্যালয়ে প্রাথমিক সমাপনী ও ইবতেদায়ী পরীক্ষা নেয়ার প্রস্তাব রয়েছে এতে।

বুধবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে এই প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী জাকির হোসেন।

সচিবালয়ে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, পঞ্চম শ্রেণির সমাপনী পরীক্ষাটা বিদ্যালয়ে নেয়ার চিন্তাভাবনা করছি, আগে এটা কেন্দ্রভিত্তিক নেয়া হত। এটা না করে স্ব স্ব বিদ্যালয়ে, যাতে করে জমায়েতটা বেশি না হয়, আমাদের ছেলেমেয়েরা আক্রান্ত না হয়, এ রকম চিন্তাভাবনা আমরা করছি।

নিজ নিজ বিদ্যালয়ে পঞ্চম শ্রেণির সমাপনী পরীক্ষা নেয়ার পাশাপাশি বিকল্প প্রস্তাবও প্রধানমন্ত্রীর কাছে পাঠানো হয়েছে বলে জানান প্রতিমন্ত্রী।

মঙ্গলবার প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেনের সই নেয়ার পর আজ প্রস্তাবটি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পাঠানো হয়।

গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, চার-পাঁচটি প্রস্তাব দেয়া হয়েছে, প্রধানমন্ত্রী যেটি অনুমোদন দেন সেভাবেই হবে।

পাঁচটি প্রস্তাবের মধ্যে এবার প্রাথমিক ও ইবতেদায়ী সমাপনী পরীক্ষা না নেয়ার প্রস্তাবও রয়েছে।

এর আগে মঙ্গলবার প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ সচিব আকরাম-আল-হোসেন গণমাধ্যমকে জানিয়েছিলেন, এবার যাতে প্রাথমিক ও ইবতেদায়ী এবং জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষা নিতে না হয় সেজন্য একটি সারসংক্ষেপ প্রধানমন্ত্রীর কাছে পাঠানো হবে। প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন পেলে এবার আর এই পরীক্ষা হবে না।

তবে অষ্টম শ্রেণির জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) ও জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট (জেডিসি) পরীক্ষা নিয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয় এখনও কোনো সিদ্ধান্ত নেয়নি।

মহামারীর বিস্তারের গত ১৭ মার্চ থেকে দেশের সব ধরনের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। আগামী ৩১ আগস্ট পর্যন্ত সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছুটি ঘোষণা করা আছে।

বিদ্যালয় বন্ধ থাকায় সিলেবাস শেষ করা যায়নি জানিয়ে গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী জাকির হোসেন বলেন, এজন্য আমরা বলেছিলাম প্রয়োজনে হলে আগামী বছরের জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারি মাসে সিলেবাস শেষ করে তখন পরীক্ষা নেয়ার চিন্তাভাবনা আছে।

প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা নেয়া না গেলে মেধার ভিত্তিতে পঞ্চমের সমাপনী উত্তীর্ণদের যে বৃত্তি দেয়া হয়, তা এবার দেয়া হবে না বলে জানান প্রতিমন্ত্রী।

তবে আগেই মতো প্রাথমিকের সব শিক্ষার্থীর জন্য উপবৃত্তি কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে বলে জানান গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী জাকির।

Facebook Comments