রাজবাড়ী, ৮ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, শনিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২০

আশিক মাহমুদ মিতুল’র পৃষ্টপোষকতায় জনি’র আয়োজনে

বঙ্গবন্ধুর ৪৫ শাহাদাৎ বার্ষিকী উপলক্ষে কুইজ প্রতিযোগীতা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত

প্রকাশ: ১৫ আগস্ট, ২০২০ ১১:৪৩ : অপরাহ্ণ

॥মাসুদ রেজা শিশির ॥ রাজকন্ঠ ডট কম

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫ তম শাহাদাৎ বার্ষিকী উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু ও আমাদের স্বাধীনতা বিষয়ক বিশেষ কুইজ প্রতিযোগীতা ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠিত হয়েছে। রাজবাড়ী জেলা আওয়ামীলীগের অন্যতম সদস্য বিশিষ্ঠ ব্যবসায়ী তরুন আওয়ামীলীগ নেতা আশিক মাহমুদ মিতুল’র পৃষ্টপোষকতায় ও সাবেক ছাত্র নেতা জাফরিন এন্টার প্রাইজের সত্বাধীকারী মোঃ মনোয়ার হোসেন জনি সার্বিক ব্যবস্থাপনায় বিশেষ কুইজ প্রতিযোগীতা ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠিত হয়েছে। ১৫ আগষ্ট শনিবার সকাল ১০ টা থেকে এ প্রতিযোগীতা শরু হয়। পাংশা সরকারী জর্জ উচ্চ বিদ্যালয়ে উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে ১২৬ জন শিক্ষার্থী এ কুইজ প্রতিযোগীতায় অংশ গ্রহণ করেন। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে ঘিরে ৮০টি প্রশ্ন করা হয় এ প্রতিযোগীতায়। অংশ গ্রহণকারী সকল শিক্ষার্থীদের সস্মাননা পুরস্কার, নাস্তা ও দুপুরের খাবার সরবরাহ করেন আয়োজকরা। স্বাস্থ্য বিধি মেনে শারিরিক দুরত্ব বজায় রেখে প্রথম বারের মত জাতীয় শোক দিবসে এই বিশেষ কুইজ প্রতিযোগীতায় ১০ জন শিক্ষার্থীকে বিশেষ পুরস্কারে পুরস্কৃৃত করা হয়। প্রথম ও ২য় স্থান অর্জন কারী ২ জনকে আর্কশনীয় পুরস্কারে ভ’ষিত করা হয়। এ ছাড়া সকল অংশ গ্রহণ কারীদের জন্য ”শেখ মুজিবুর রহমানের অসমাপ্ত আতœজীবনী” বই উপহার হিসাবে প্রদান করা হয়। বিকালে উপজেলা শিল্পকলা একাডেমিতে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন রাজবাড়ীর সিভিল সার্জন ডা.মোঃ নুরুল ইসলাম। পাংশা উপজেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক কামাল আল মামুনের সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথি হিসাবে পাংশা সরকারী জর্জ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোছাঃ রাশেদা খাতুন,উদয়পুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ সামসুল আলম, মহিলা কলেজের শিক্ষক আব্দুর রশিদ,পাংশা সরকারী কলেজের শিক্ষক মোঃ হাবিবুর রহমান, উপজেলা শিল্পকলা একাডেমির সাধারণ সম্পাদক মোঃ রিয়াজুল ইসলাম জাহাঙ্গীর প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। রাজবাড়ী জেলা আওয়ামীলীগের অন্যতম সদস্য বিশিষ্ঠ ব্যবসায়ী তরুন আওয়ামীলীগ নেতা আশিক মাহমুদ মিতুল’র পৃষ্টপোষকতায় সাবেক ছাত্র নেতা মনোয়ার হোসেন জনির সার্বিক প্রচেষ্টায় এ অনুষ্টানটি অনুষ্ঠিত হওয়ায় সাবেক ছাত্রনেতা মনোয়ার হোসেন জনি বলেন আমরা চেষ্টা করছি নতুন প্রজন্মের শিক্ষার্থীদের মধ্যে বঙ্গবন্ধুর আর্দশকে ছড়িয়ে দিতে আমাদের নেতা আশিক মাহমুদ মিতুল ভাই’র প্রচেষ্ঠায় আমরা শুরু করেছি এ ধারাবাহিকতা অব্যহত থাকবে। মনোয়ার হোসেন জনি আরো বলেন ১৯৭৫ সালের ১৫ আগষ্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে স্ব-পরিবারে হত্যা করেছিল ঘাতকেরা সে সময় সৌভাগ্যক্রমে আমাদের আজকের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা ও তার বোন শেখ রেহেনা দেশের বাইরে থাকায় প্রাণে বেচে গিয়েছিলেন। জাতির পিতার প্রতি শ্রদ্ধা জানাতেই আমার বড় ভাই আশিক মাহমুদ মিতুল’র অর্থায়নে ও তার সার্বিক দিক নির্দেশনায় আমরা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষে এ আয়োজন করেছিলাম। অনুষ্ঠানে আশিক মাহমুদ মিতুলের পক্ষে সম্মাননা পুরস্কার গ্রহণ করেন উপজেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ কামাল আল মামুন ও মনোয়ার হোসেন জনির পক্ষে সম্মাননা পুরস্কার গ্রহণ করেন পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি মোঃ শাহেদ আলী।

Facebook Comments