রাজবাড়ী, ২৬শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, সোমবার, ১০ আগস্ট ২০২০

মিতুল’র সহযোগীতায় দরিদ্র মানুষের মধ্যে ২৫ মন গরুর মাংস ও ৫ মন খাশির মাংস বিতরণ

প্রকাশ: ৩১ জুলাই, ২০২০ ১০:৩৭ : অপরাহ্ণ

॥মাসুদ রেজা শিশির ॥রাজকন্ঠ ডট কম

করোনা মহামারির মধ্যে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করতে আশিক মাহমুদ মিতুলের সহযোগীতায় ভিন্ন ধর্মী এক উদ্দ্যোগ গ্রহণ করেছেন সাবেক ছাত্র নেতা মের্সাস জাফরিন এন্টার প্রাইজের স্বতাধীকারী মোঃ মনোনয়ার হোসেন জনি। ২৫ মন গরুর মাংস ও ৫ মন খাশির মাংস ঈদের আগের দিনই দরিদ্র মানুষের ঘরে ঘরে এই মাংস পৌছে দেওয়া হচ্ছে। ন্মিম আয়ের মানুষ গুলি ছেলে মেয়ে নিয়ে দুশ্চিন্তা থেকে কিছুটা লাঘব হয়েছে এই মাংস পেয়ে। মনোয়ার হোসেন জনি বলেন ঈদের দিন অনেকেই বড় লোকদের প্রতি চেয়ে থাকেন কখন তারা একটুকরা মাংস দিবেন, সেই দিকে যাতে দরিদ্র মানুষ গুলোর তাকিয়ে থাকতে না হয় এই জন্যই আমরা আশিক মাহমুদ মিতুলের নির্দেশে ঈদের আগেই তাদের ঘরে মাংস পৌছে দেওয়ার উদ্দ্যোগ গ্রহণ করেছি। শুক্রবার ভোর রাত থেকে আলাদা আলাদা জায়গায় গরু ও খাশি জবাই করা হয়। এবং তা ২ কেজির একটি করে প্যাকেট করে নিজেস্ব ব্যবস্থাপনায় দরিদ্র মানুষের ঘরে ঘরে পৌছে দেওয়ার কাজ চলছে। সকাল ১১ টায় গিয়ে দেখাযায় ৬ জন কশাই মাংস কাটতে ব্যাস্ত সময় পার করছে সেই সাথে স্থানীয় ছাত্রলীগ ও যুবলীগের কর্মীরা তা সুন্দর করে প্যাকেটজাত করছে একই সাথে ভ্যান যোগে আবেদন করা তালিকা ধরে তাদের বাড়ীতে বাড়ীতে গিয়ে এ মাংস পৌছে দিচ্ছেন। স্থানীয় একাধীক মানুষের সাথে কথা হলে তারা বলেন আশিক মাহমুদ মিতুলের এ মহতী উদ্দ্যোগ মানুষ মনে রাখবে যাদের মাংস ক্রয় করার সামর্থ নেই তাদের ঘরে এই ঈদের সময় মাংস পৌছে দেওয়া এটা একটি মহতি কাজ, আশিক মাহমুদ মিতুলের প্রতিটি কাজই জন কল্যাণ কর। মানুষ মানুষের জন্য এটা আবারও প্রমানিত হয়েছে এই কাজের মাধ্যমে। সাবেক ছাত্র নেতা মনোয়ার হোসেন জনি ব্যক্তিগত ফেসবুক আইডিতে ঘোষনা দিয়েছিলেন রাজবাড়ী জেলা আওয়ামীলীগের অন্যতম সদস্য বিশিষ্ঠ ব্যবসায়ী আশিক মাহমুদ মিতুল’র সহযোগীতায় বিশেষ করে পাংশা পৌরসভার নিন্ম ও মধ্যবিক্ত পরিবারকে আসন্ন ঈদুল আযহা উপলক্ষে ঘরে ঘরে খাদ্য পৌছে দিবেন, সেই ঘোষনার আলোকেই আজ শুক্রবার ঈদের আগের দিন ২৫ মন গরুর মাংস ও ৫ মন খাশির মাংস বিতরণ করা হয়। আশিক মাহমুদ মিতুল’র নির্দেশে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করে নিতেই এই প্রয়াস বলে জানাগেছে। সাধারণ মানুষকে একটু ভাল রাখতে করোনা কালীন সময়ে আশিক মাহমুদ মিতুল নিজ অর্থায়নে বিভিন্ন সময় খাদ্য সামগ্রী নিম্ম আয়ের মানুষের মধ্যে প্রদান করে চলছেন তা এখনও অব্যহত রয়েছে। সাবেক ছাত্র নেতা মের্সাস জাফরিন এন্টার প্রাইজের স্বতাধীকারী মোঃ মনোনয়ার হোসেন জনি আরো বলেন- এই করেনা কালীন সময়ে নি¤œ ও মধ্যবিত্ত মানুষ দুশ্চিন্তায় রয়েছে তাদের পাশে দাড়ানোর জন্যই আমাদের এই ক্ষুদ্র প্রচেষ্ঠা, জেলা আওয়ামীলীগের অন্যতম সদস্য আশিক মাহমুদ মিতুলের সার্বিক দিক নির্দেশনায় ও তার সহযোগীতায় আমরা সাধারণ খেটে খাওয়া মানুষের কথা ভেবেই এ উদ্দ্যোগ গ্রহণ করেছি। ঈদ মানে খুশি ঈদ মানে আনন্দ আর এই মহামারি করোনা কালীন সময়ে আমরা সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে স্বাস্থ্য বিধি মেনেই প্রিয় ভাই আশিক মাহমুদ মিতুল হাকিমের প্রচেষ্টায় দরিদ্র মানুষের ঘরে ঘরে মাংস পৌছে দেওয়ার মাধ্যমে ঈদের আনন্দকে ভাগাভাগি করে নিচ্ছি।

Facebook Comments