রাজবাড়ী, ৯ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, মঙ্গলবার, ২৪ নভেম্বর ২০২০

ইউএনও ঝোটন চন্দ যখন মানবতার ফেরিওয়ালা

প্রকাশ: ১১ জুন, ২০২০ ৭:৩০ : অপরাহ্ণ

বোয়ালমারী(ফরিদপুর)প্রতিনিধি ॥রাজকন্ঠ ডট কম


একজন বীর করোনা যোদ্ধা হিসেবে ফরিদপুরের বোয়ালমারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ঝোটন চন্দ মানবতার দৃষ্টান্ত স্থাপন করে সর্ব মহলে প্রশংসা কুড়িয়েছেন। তিনি দেশে প্রথম প্রাণঘাতি নভেল করোনাভাইরাস সংক্রমনের পরে এর বিস্তার রোধে লকডাউন শুরু হওয়ার পর থেকে স্বাস্থ্য ও জীবনের ঝুকিকে সামনে রেখে ঘুম ও বিশ্রাম ভুলে রাত-দিন একাকার করে মানবতার সেবায় নিজেকে উৎসর্গ করে দিয়েছেন। নিজ কার্যালয়ে চলছে তার অঘোষিত ‘ঘরবসতি’। গভীর রাত পর্যন্ত তিনি তার কার্যালয়ে অবস্থান করে এলাকা বাসীর কল্যানে নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। গত প্রায় ৩ মাস ধরে তিনি উপজেলার এক প্রান্ত থেকে অপর প্রান্ত লকডাউন ও হোম কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করা, করোনা আক্তান্ত রোগীদের উন্নত চিকিৎসার ব্যবস্থাকরণ,নিজে উপস্থিত থেকে করোনায় মৃত্যু ব্যক্তির লাশ দাফন,নিরাপদ স্থানে খোলা মাঠে কাচা বাজার স্থানান্তর,চাঁদরাতে উপজেলার প্রত্যন্ত গ্রামে অসহায়দের মাঝে কাপড় বিতরন, এলাকা বাসীকে সচেতন করা, পুলিশ চিকিৎসক ও সাংবাদিক সহ আপামর জনসাধারনের মাঝে পিপিই, হ্যান্ড স্যানেটাইজার, সাবান ও মাস্ক সহ বিভিন্ন করোনা সুরক্ষা উপকরন বিতরন ,খোলা ট্রাকে ভ্রাম্যমান দোকানের মাধ্যমে সাধারন জনগনের মাঝে ন্যয্য মূল্য পন্য সামগ্রী বিক্রয়, বাজার মনিটরিং,লকডাউন চলাকালে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে বিভিন্ন আইনে ৯ লাখ ৪০ হাজার ২০০শত টাকা অর্থদন্ডও ১ জনকে কারাদন্ডে দন্ডিত করা হয়েছে,কর্মহীন নির্মান শ্রমিক,পরিবহন শ্রমিক,শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কর্মচারী,সাংস্কৃতিক কর্মী এবং ৩৩৩ ও উপজেলা প্রশাসনের হটলাইনের মাধ্যমে প্রাপ্ত সংবাদের ভিত্তিতে রাতের আধারে কর্মহীন হয়ে পড়া নিম্ন আয়ের দরিদ্র পরিবারের মুখে খাবার তুলে দিতে প্রাণন্তকর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।তিনি উপজেলার ৯হাজার১৬০ জন কর্মহীন নিম্ন আয়ের দরিদ্র পরিবারের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর ২হাজার৫০০টাকার ঈদ উপহার এবং করোনায় আক্রান্ত ও করোনার ফলে ক্ষতিগ্রস্ত ৬০০কর্মহীন পরিবারের মাঝে প্রধানমন্ত্রী ও ফরিদপুর জেলা প্রশাসকের ত্রান তহবিল থেকে পরিবার পিছু ৫০০/= টাকা করে মোট ৩ লাখ টাকা ট্যাগ অফিসারদের মাধ্যমে যাচাই বাছাই করে বিতরন করেন।এছাড়া তিনি প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে স্থানীয় সংসদ সদস্য মনজুর হোসেন ও উপজেলা চেয়ারম্যান এমএম মোশাররফ হোসেনের সঙ্গে ঘরে ঘরে নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্য ও পন্য সামগ্রী পৌঁছে দিতে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন। তিনি প্রকৃত অসহায় ও দরিদ্র মানুষকে ছবিযুক্ত মানবিক সহায়তা কার্ডের মাধ্যমে উপজেলার ১৫হাজার ৫০০ পরিবারকে ত্রান বিতরনের কার্যক্রম পরিচালনা করছেন এবং অসহায় প্রতিবন্ধি পরিবারকে খাদ্য সহায়তা করে পরিবারের দায়িত্ব গ্রহন করায় গরীবের জন্য তার অকৃপন ভালোবাসা প্রকাশ করে মহানুভবতার পরিচয় দিয়েছেন।ত্রান সামগ্রী বিতরন ও সামাজিক নিরাপত্তা কার্যক্রমে অনিয়মের বিরুদ্বে ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়েছে। এ মহাদূর্যোগ মুহূর্তে নিরন্তকরভাবে এলাকাবাসীর পাশে দাড়িঁয়ে তিনি দলমত শ্রেণী-পেশা নির্বিশেষে সকল মহলের প্রশংসা কুড়িয়ে প্রকৃত ‘মানবতার ফেরিওয়ালা’ হিসেবে অভিহত হয়েছেন।

এ প্রসঙ্গে বোয়ালমারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ঝোটন চন্দ(ইউএনও) বলেন প্রশংসা কিংবা বাহাবা পাওয়ার জন্য নয়, দেশ ও জাতির এ ক্রান্তিকালে ‘মানবসেবাকে’ প্রকৃত কাজ মনে করে করেছি এবং সর্বদা মানবকল্যানে ব্রতি থেকে নিঃস্বার্থভাবে কাজ করে যাবো।

Facebook Comments