রাজবাড়ী, ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, শুক্রবার, ২ ডিসেম্বর ২০২২

এমপি জিল্লুল হাকিমের নির্দেশে ধান কেটেছি বললেন পৌর কৃষকলীগের নেতারা

প্রকাশ: ১৫ মে, ২০২০ ১১:৪২ : পূর্বাহ্ণ

প্রিন্ট করুন

স্টাফ রিপোর্টার ॥রাজকন্ঠ ডট কম

রাজবাড়ীর পাংশা উপজেলার পৌর শহরের মৈশালা বাসস্ট্যান্ডের অনতিদূরে গত ১৩ মে এক কৃষকের ৫০ শতাংশ জমিতে ধান কেটে দিয়েছে পৌর কৃষকলীগের নেতাকর্মীরা। ধান কাটার বিষয়টিকে পুঁজি করে কথিত কৃষকলীগের নেতা নূরে আলম সিদ্দিকী হক বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে সংবাদ প্রকাশ করেছে বলে জানা গেছে। সংবাদে প্রকাশ করা হয় কেন্দ্রীয় কৃষকলীগের নির্দেশে এবং হকের পরামর্শে ঐ কৃষকের ধান কেটেছে পৌর কৃষকলীগের নেতাকর্মীরা। এমন সংবাদ প্রকাশ হওয়ার পর থেকেই পৌর কৃষকলীগের নেতারা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

এ বিষয়ে পৌর কৃষকলীগের সদস্য সচিব আজগর আলী খান বলেন, আমি কোন হককে চিনি না, সেও আমাকে চেনেনা। আর তার নির্দেশে ধান কাটিনি। কেন্দ্রীয় কৃষকলীগের কর্মসূচীর আলোকে এবং রাজবাড়ী-২ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ জিল্লুল হাকিম এর নির্দেশে অসহায় ঐ কৃষকের ধান কেটে দিয়েছি। আমাদের ঐ ধান কাটার ছবি ব্যবহার করে হক মনগড়া সংবাদ প্রকাশ করেছে।

অপরদিকে দেখা গেছে প্রকাশিত সংবাদে যে কৃষকের জমিতে ধান কাটার কথা বলা হয়েছে প্রকৃতপক্ষে তার কোন নিজস্ব জমি নাই। সে অন্যের জমিতে কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করে। সংবাদে প্রকাশিত কৃষক বারেক জানান, আমার জমি নাই, ঐসময় আমি পাশের জমিতে পাটক্ষেতে কাজ করছিলাম আমাকে ডেকে এনে ৫-৭ মিনিট ধান কাটতে বলে। আমি না বুঝেই ঐ ধান কেটে দিই। এখন শুনছি আমার জমিতেই নাকি ধান কেটেছেন তারা। তাই ঐ ধান কাটা নেতাদের বলি আমার জমি দেন।

এ ব্যাপারে পাংশা উপজেলা কৃষকলীগের আহ্বায়ক বকুল উদ্দিন বিশ্বাস বলেন, পাংশা উপজেলার মধ্যে ধান কাটার কমূসূচির বিষয়ে আমি কিছু জানিনা। এদিকে রাজবাড়ীতে বিভিন্ন জায়গায় ফটোসেশন করে ধান কাটার কর্মসূচীর নামে কৃষকদের ক্ষতিসাধন সহ নেতাকর্মীদের মধ্যে বিভ্রান্তি সৃষ্টি করছে কৃষকলীগের কথিত ঐ নেতা বলে জানিয়েছেন পাংশা পৌর কৃষকলীগের নেতা কর্মীরা।