রাজবাড়ী, ১০ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১

চালকদের জন্য রাজবাড়ী পুলিশের ৫ টাকার ইফতার !

প্রকাশ: ৩০ এপ্রিল, ২০২০ ৪:২২ : অপরাহ্ণ

কাজী হুমায়ন,রাজবাড়ী প্রতিনিধি : রাজবাড়ী শহরে ইফতারের সময় আটকে পড়া বিভিন্ন পণ্যবাহী ট্রাক ও যানবাহনের চালকদের জন্য এক ব্যতিক্রম উদ্যেগ গ্রহণ করেছেন রাজবাড়ী জেলা পুলিশ।

করোনার কারনে রাজবাড়ীতে চলছে অনির্দিষ্ট কালের জন্য লকডাউন। ফলে শহরের সব খাবার হোটেল বন্ধ রয়েছে। সেই সাথে ফুটপাতের অস্থায়ী ইফতারের দোকানও বন্ধ। ফলে জেলাতে বিভিন্ন জায়গার পণ্যবাহী ট্রাক ও যানবাহনের চালকেরা ইফতারের সময় পড়ে চরম বিপাকে।

অসহায় ঐ সকল চালকদের কথা ভেবে এবার রাজবাড়ী জেলা পুলিশ মাত্র ৫ টাকার বিনিময়ে ইফতারের প্যাকেট তাদের হাতে তুলে দিচ্ছেন।

তাদের আত্নসম্মানে যাতে আঘাত না লাগে সে দিকটা বিবেচনা করে তাদের কাছ থেকে ৫ টাকা গ্রহণ করছে পুলিশ সদস্যরা।

রাজবাড়ী পুলিশের এমন মহতি উদ্যেগকে স্বাগত জানিয়েছেন জেলার সর্বস্তরের সব পেশার মানুষ। তাদের এই উদ্যেগকে স্বাগত জানিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে স্ট্যাটাস দিচ্ছেন।

ব্যতিক্রমি এই উদ্যেগের স্বপ্নদ্রষ্টা রাজবাড়ী জেলা পুলিশ সুপার মো: মিজানুর রহমান বলেন, রাজবাড়ী জেলা শহরে সকল খাবারের দোকান বন্ধ। এখন চলছে পবিত্র রমজান মাস। অথচ করোনার কারনে এ বছর ফুটপাতে ইফতারী সামগ্রী বিক্রী নিষিদ্ধ। নিত্য প্রয়োজনীয় বিভিন্ন পণ্যের ট্রাক বা গাড়ী শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে মালামাল নামিয়ে দিতে আসে।

আবার কৃষি পণ্য মফস্বল থেকে রাজধানীসহ বিভিন্ন শহরেও নিয়ে যায়। ঐ সকল ট্রাক বা গাড়ীর চালক, সহকারি, কোম্পানীর কর্মচারী, ব্যবসায়ী রোজা রাখেন। তারা ইফতারীর সময় রাজবাড়ী শহরে এসে যাতে মহাবিপাকে পড়ে না যান সেজন্য আমরা এই উদ্যেগ গ্রহণ করেছি।

ইফতারীর সময়ে আটকে পড়ে কোন রোজাদার ব্যক্তি যাতে বিপাকে না পড়েন তাই জেলা পুলিশের এই আয়োজন।

এ সময় তিনি আরো জানান, পণ্যবাহি ট্রাকের কোন রোজাদার ব্যক্তির যাতে সম্ভ্রমে আঘাত না লাগে সেজন্য একেবারে ফ্রি নয়, মাত্র ৫ টাকার বিনিময়ে ইফতারি বিক্রয় কেন্দ্র চালু করা হয়েছে।

প্রতিদিন ১০০টি প্যাকেট বিক্রি করা হবে এবং প্রতিটি প্যাকেটে ৫০ টাকার ইফতারি থাকবে বলেও পুলিশ সুপার জানান।

এর আগে রাজবাড়ী জেলা পুলিশ সুপার মো: মিজানুর রহমান নিজেদের তৈরি জেলার ৫টি উপজেলার প্রায় ৫০ হাজার মানুষের মাঝে বিনামূল্য হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরণ করেছেন। তাছাড়াও শহরের ক্ষুধার্ত কুকুরের খাবারের ব্যবস্থা করেছেন তিনি।