রাজবাড়ী, ৮ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, বৃহস্পতিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১

করোনা মোকাবেলায় কাঁসাদাহ যুব সংঘ স্বেচ্ছায় গ্রাম রক্ষায় নিয়োজিত

প্রকাশ: ১৭ এপ্রিল, ২০২০ ৬:৫৩ : অপরাহ্ণ

মাসুদ রেজা শিশির ॥ বিশ্বব্যাপী মহামারী করোনা ভাইরাসের প্রভাবে স্বাভাবিক জীবনযাত্রা ব্যহত হচ্ছে। বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে সাধারণ মানুষ। দিন দিন করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ায় উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছে দেশের মানুষ। করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে সবথেকে বেশী প্রয়োজন সচেতনতা। সারাবিশ্বের ন্যায় বাংলাদেশেও দিন দিন বেড়ে যাচ্ছে করোনায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা।

এ অবস্থায় জনসচেতনতা সৃষ্টিতে ব্যতিক্রম এক উদ্যোগ গ্রহণে করেছে রাজবাড়ী জেলার কালুখালী উপজেলার মৃগী ইউনিয়নের কাঁসাদাহ গ্রামের একদল যুবক। এলাকার সাধারণ মানুষদের সচেতনতা সৃষ্টি সহ নানা ধরণের কার্যক্রম পরিচালনা করছে।

কাঁসাদহ গ্রামের প্রবেশ মুখে করেছেন হাত ও পা ধোয়ার ব্যবস্থা। ঐ এলাকায় কেউ প্রবেশ করতে গেলে ধুতে হবে হাত ও পা। এজন্য কাজ করছেন কাঁসাদহ যুব সংঘের ২০ স্বেচ্ছাসেবক। নিজ উদ্যোগেই তারা করেছেন এই ব্যবস্থা। গ্রামের সকল রাস্তা-ঘাট ও বাড়ি বাড়ি গিয়ে জীবাণুনাশক স্প্রে ছিটাচ্ছেন সংঘের সদস্যবৃন্দ।

শুক্রবার সকালে ঐ এলাকায় গিয়ে দেখা যায় কাঁসাদহ যুব সংঘের সদস্যরা সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে গ্রামের প্রবেশদ্বারে বাঁশ দিয়ে করেছেন একটি গেইট। সাধারণ মানুষ, ভ্যান, নসিমন-করিমন সহ যেসকল যানবাহন প্রবেশ করছে তাদেরকে থামিয়ে হ্যান্ডওয়াশ, সাবান ও পানি দিয়ে হাত ও পা ধুয়ে গ্রামে প্রবেশ করাচ্ছেন। সংগঠনের ৪ জন করে সদস্য শিফটভিত্তিক নিয়মিত ডিউটি করে যাচ্ছেন।

গ্রামের প্রবেশদ্বারে পথচারীদের থামিয়ে এসকল কর্মকান্ডে কেউ বিরক্তিবোধ করছেন কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে এক পথচারী বলেন, না আমরা এতে কোন বিরক্তিবোধ করছি না। এলাকার ছেলেরা এমন কর্মকা- করায় আমরা গর্বিত।

এলাকার এক অভিভাবক বলেন, গ্রামের ছেলেরা দেশ, জাতি ও সমাজের কথা তথা এলাকার অসেচতন মানুষের কথা চিন্তা করে এমন উদ্যোগ গ্রহণ করায় সত্যিই আমরা খুশি। একজন অভিভাবক হিসেবে এ কাজের জন্য আমি ওদেরকে অনুপ্রেরণা ও সহযোগিতা করছি।

কাঁসাদহ যুব সংঘের স্বেচ্ছাসেবক সোহাগ হোসেন বলেন, করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধে আমরা চিন্তা করি কি করে আমাদের গ্রামের মানুষদেরকে নিরাপদে রাখা যায়, তার জন্য আমরা এ উদ্যোগ গ্রহণ করি। আমাদের গ্রামে যাতে করোনা ভাইরাসের জীবাণু প্রবেশ করতে না পারে তার জন্য গ্রামে কোন লোক ও যানবাহন প্রবেশের পূর্বে এখানে থামিয়ে হাত ও পা ধোয়ার ব্যবস্থা করেছি। যানবাহনে জীবাণুনাশক স্প্রে ছিটাচ্ছি।

এ বিষয়ে ইউনিয়ন যুবলীগের নেতা রবিউল ইসলাম রঞ্জু মল্লিক বলেন, বাংলাদেশে যখন প্রথম করোনা রোগী সনাক্ত হয় তখন থেকেই আমরা চিন্তিত হয়ে পড়ি। পরবর্তীতে এলাকার স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, গ্রামের ছোট বড় সকলের সাথে বসে আলোচনা করি। আলোচনা করে আমরা সিদ্ধান্ত নিই যে আমাদের গ্রামের প্রবেশমুখে একটি ব্যারিকেড দিয়ে সেখানে মানুষের হাত ও পা ধোয়ার ব্যবস্থা করার। তারপর থেকেই এই এলাকার যুবকরা এগিয়ে এসে এ কর্মকান্ডে শরীক হয়। আমরা আমাদের নিজস্ব অর্থায়নে এ কর্মকা- পরিচালনা করছি। বিশেষ করে আমাদের রাজবাড়ী-২ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ জিল্লুল হাকিম এমপির সুযোগ্য পুত্র তরুণ প্রজন্মের নেতা আশিক মাহমুদ মিতুল ভাই করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে নানা রকম কাজ করে যাচ্ছেন। প্রকৃতপক্ষে আমরা তাকে মডেল হিসেবে দেখি। আমাদের বিশ্বাস তিনি নিজেও আমাদের এ উদ্যোগের অংশীদার হবেন।

কাঁসাদহ যুবসংঘের এমন ব্যতিক্রম উদ্যোগের বিষয়ে কালুখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ নুরুল আলম বলেন, কালুখালী উপজেলায় করোনা পরিস্থিতি নিয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় জেলা প্রশাসক মহোদয়ের তত্ত্বাবধায়নে কাজ করে যাচ্ছি। পাশাপাশি বিভিন্ন রাজনৈতিক সংগঠন ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন কাজ করে যাচ্ছে। এদের মধ্যে মৃগীতে আমাদের একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন কাজ করে যাচ্ছে। তাদের এ উদ্যোগকে আমি সাধুবাদ জানাই। উপজেলা প্রশাসন সবসময় ভাল কাজের সঙ্গে আছে। তাদের সার্বিক সহযোগিতায় উপজেলা প্রশাসন তাদের সহায়তা প্রদান করবে। আমি তাদের উদ্যোগের সাফল্য কামনা করি এবং সবার প্রতি আমার আহ্বান থাকবে দেশের এই ক্রান্তিলগ্নে কালুখালী উপজেরায় আমরা সকলে মিলে কাজ করবো, বাংলাদেশকে সুন্দর ও স্বাভাবিক রাখবো। আমরা যেন করোনা যুদ্ধে জয়ী হতে পারি এজন্য আমি সকলের সহযোগিতা কামনা করি।

করোনা প্রতিরোধে কাঁসাদহ যুব সংঘের যেসকল সদস্যরা কাজ করে যাচ্ছে তারা হলো, সোহাগ, উত্তম, জিহাদ, ওবায়দুল, সৌরভ, রায়হান, রাকিবুল, সুমন, সোহান, লালচাঁদ, অসীম, সাগর, সুদেব, রুবেল, জয়দেব সহ অন্যান্য সকল সদস্যবৃন্দ।