রাজবাড়ী, ৯ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১

বিএনপিসহ সব রাজনৈতিক দলকে এক কাতারে চায় আ.লীগ

প্রকাশ: ৬ এপ্রিল, ২০২০ ৮:২৮ : অপরাহ্ণ

‘অহেতুক সমালোচনা’ না করে করোনাভাইরাস মোকাবিলায় বিএনপিসহ সব রাজনৈতিক দলকে সম্মিলিতভাবে কাজ করে এই সংকট উত্তরণে কাজ করার আহ্বান জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

সোমবার (০৬ প্রিল) সংসদ ভবন এলাকায় নিজের সরকারি বাসভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে এই আহ্বান জানান তিনি।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ যারা প্রধানমন্ত্রীর সাহসী এবং দুরদর্শী প্যাকেজ প্রণোদনার বিরুদ্ধে না বুঝে বক্তব্য-বিবৃতি দিয়ে অহেতুক সমালোচনা করেছেন, তাদের উচিত এই ভয়াবহ দুর্যোগের সময়ে আমাদের ঐক্যবদ্ধভাবে সম্মিলিত প্রয়াসে এই সংকট থেকে দেশ ও জাতিকে উদ্ধার করতে কাজ করা।’

তিনি বলেন, আজ আমাদের দেশের সব পেশার মানুষ ঐক্যবদ্ধ হচ্ছেন।  একযোগে কাজ করছেন। জনগণ প্রণোদনা প্যাকেজ ইতিবাচকভাবে গ্রহণ করেছে। কাজেই নেতিবাচক সমালোচনা পরিহার করে আমাদের উচিত হবে জনগণ এবং দেশের স্বার্থে এই সংকট কাটিয়ে ওঠার লক্ষ্য ইতিবাচকভাবে ঐক্যবদ্ধভাবে এগিয়ে যাওয়া।’

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘বিএনপিসহ অন্যান্য রাজনৈতিক দলকে আহ্বান জানাবো, এই সংকট মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রী জনকল্যাণে যে বাস্তবসম্মত উদ্যোগ নিয়েছেন সে অনুযায়ী সবাই একযোগে কাজ করি, এটা দেশবাসীর প্রত্যাশা। কাজেই এখানে পারস্পরিক দোষারোপ না করে ঐক্যবদ্ধভাবে প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত প্যাকেজ ঘোষণার বাস্তবায়নে একযোগে কাজ করা দরকার।’

করোনাভাইরাসের প্রভাবে বিশ্ব অর্থনীতিতে সম্ভাব্য মন্দার ঢেউ ঠেকাতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্যাকেজ প্রণোদনাকে ‘সাহসী কর্মপরিধি’ উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘বিশ্বব্যাংক, আইএমএফসহ বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো বৈশ্বিক অর্থনীতিতে মন্দার আশঙ্কা প্রকাশ করেছে। জাতীয় অর্থনীতিতে এর মোকবিলায় শেখ হাসিনা বিশাল প্রণোদনা প্যাকেজ সাহসী কর্মপরিধি ঘোষণা করেছেন। এই প্যাকেজ পরিকল্পনা বিত্তবানদের স্বার্থকেই সমর্থন করে বলে মির্জা ফখরুল ইসলামের বক্তব্য ভিত্তিহীন এবং অর্বাচীনের মতো বক্তব্য।’

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘তিনি ভালোভাবে যদি এই প্যাকেজ প্রণোদনা লক্ষ্য করেন বা পড়ে দেখেন; তাহলে বুঝতে পারবেন এতে বিত্তবানদের চেয়ে সাধারণ মানুষদের স্বার্থই প্রধান্য পেয়েছে, অগ্রাধিকার পেয়েছে। মির্জা ফখরুলের উচিত ছিলো প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানানো। তিনি সেটি না করে উল্টো রাজনৈতিক ফায়দা লোটার অপতৎপরতা করেছেন। অহেতুক অবাস্তব কিছু বক্তব্য রেখেছেন।’

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর প্রণোদনা প্যাকেজ ও আর্থিক বরাদ্দের পার্থক্য বুঝতে ব্যর্থ হয়েছেন উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘প্রণোদনা প্যাকেজ হচ্ছে বাজেট বরাদ্দ বা ক্যাশ ট্রান্সফার নয়। সংকটে অর্থনীতিকে আগের গতিশীল অবস্থায় ফিরিয়ে আনতে সম্ভাব্য পিছিয়ে পড়া খাতগুলোকে গুরুত্ব দিয়ে প্রণোদনা প্যাকেজ দেওয়া হয়। এই বাস্তবতাটুকু ফখরুল সম্ভবত অনুধাবন করতে ব্যর্থ হয়েছেন।’

‘এই অর্থ যখন বাজারে আসে তখন এটির সুফল বিত্তবান, বিত্তহীন, মধ্যবিত্ত খেটে খাওয়া স্বল্প আয়ের মানুষ এবং কর্মহীন মানুষ সবাই এর সুফল পাবে। এই প্রণোদনা প্যাকেজের আওতায় প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে সব শ্রেণি-পেশার মানুষ অন্তর্ভুক্ত রয়েছেন। শিল্প সেবা খাতে প্রণোদনা ঘোষণার ফলে নতুনভাবে কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে এবং সেটি সাধারণ মানুষেরই কাজে আসবে। কর্মহীন মানুষের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হবে।”

করোনাভাইরাসের সংক্রমিত হয়ে যেসব বাংলাদেশি মারা গেছেন তাদের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান ওবায়দুল কাদের। একই সঙ্গে ভাইরাসে সংক্রমণ হয়ে যারা চিকিৎসাধীন রয়েছেন তাদের দ্রুত আরোগ্য কামনা করেন তিনি।