রাজবাড়ী, ১৩ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, সোমবার, ২৮ নভেম্বর ২০২২

শাফিন হত্যা মামলার এজাহারভূক্ত আসামী সুমন গ্রেফতার

প্রকাশ: ২১ আগস্ট, ২০১৯ ২:৩২ : অপরাহ্ণ

প্রিন্ট করুন

পাংশা প্রতিনিধি : রাজবাড়ীর পাংশা উপজেলার হাবাসপুর ইউপির চরআফড়া পদ্মা নদীর পাড়ে আখ ক্ষেতে শাফিন খান (৪০) নামের এক ব্যাক্তিকে বালি ব্যবসাকে কেন্দ্র করে হত্যা করা হয়েছিল ২০১৭ সালের ডিসেম্বর মাসের ১৬ তারিখে। শাফিন খান কুষ্টিয়া জেলার খোকসা উপজেলার আমবাড়ীয়া গ্রামের আবু বক্কার খানের ছেলে। ঘটনার পর ওই সময় শাফিন খানের ভাই মোঃ ফরিদ হাসান খান বাদী হয়ে ৫ জনের নাম উল্লেখ্য করে পাংশা থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করে মামলা নং-৬ তাং-১৮/১২/২০১৭ ধারা-৩০২/২০১/৩৪। সেই মামলায় এজহার নামীয় ৫ নং আসামী ছিল কুষ্টিয়া জেলার খোকসা উপজেলার ভবানীগঞ্জ গ্রামের আব্দুর রহিম মাষ্টারের ছেলে সুমন। এ মামলাটি দির্ঘ তদন্ত শেষে পাংশা থানার তৎকালীন এস আই শাহীন মোল্য আদালতে চার্জশীর্ট দাখিল করেন সুমনের নাম বাদ দিয়ে। পরবর্তীতে মামলার বাদী আদালতে না রাজী পিটিশন দাখিল করেন এবং আদালতের কাছে জোর প্রার্থনা জানান তার ভাই শাফিন খান হত্যার সাথে সুমন জড়িত রয়েছে এমন আবেদনের পর আদালত সুমনকে পূনরায় আসামী করেন এ মামলায় সুমন পূর্বেই হাইকোর্ট থেকে জামিন নিয়েছিলেন। বাদী পক্ষের আইনজীবি এ্যাড.আব্দুর রাজ্জাক জানান সুমন সোমবার ১৯ আগষ্ট রাজবাড়ীর ২নং আমলী আদালতে আত্বসর্মথন করে জামিন আবেদন করেন আইনজীবির মাধ্যমে আদালত তাকে জামিন না দিয়ে জেল হাজতে প্রেরণ করেছেন। সুমন ইসলামী ফাউন্ডেশনের খোকসা উপজেলা ফিল্ড অফিসার হিসাবে কর্মরত ছিলেন সম্প্রতি ইসলামিক ফাউন্ডেশনের কুষ্টিয়া জেলা কার্যালয়ে সাসপেন্ডন্ট অবস্থায় ছিলেন বলে সুত্র জানিয়েছে। অপর দিকে সুমনের বিরুদ্ধে কুষ্টিয়ার খোকসা থানায় নাশকতার মামলা রয়েছে মামলা নং-১১/৮০ তাং-২৮/৯/২০১৮ ইং। এছাড়াও তার বিরুদ্ধে আইসিটি আইনেও খোকসা থানায় তার বিরুদ্ধে একটি মামলা রয়েছে বলে সংশ্লিষ্ঠ সুত্র জানিয়েছেন। সুমনের বিরুদ্ধে খোকসা থানায় ফরিদ খানকে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দেওয়ার জিডি রয়েছে জিডি নং-৮৪৫ তাং-২১/০২/১৮ ইং, এছারাও একই এলাকার ইসলাম সরদার বাদী হয়ে খোকসা থানায় সুমন ও তার সহযোগীদের বিরুদ্ধে প্রাণনাশের হুমকির অভিযোগ এনে সাধারণ ডাইরী করেছিল যার নং-৫৯ তাং-২/৭/২০১৮ইং। এলাকার একটি সুত্র নিশ্চিত করে বলেন সুমন একটি মাদক চক্রের সাথে জড়িত ছিল সম্প্রতি কুষ্টিয়া জেলা ডিবি পুলিশ অভিযান চালিয়ে ৫০০ পিস ইয়াবাসহ খোকসার আমবাড়ীয়া এলাকা থেকে ৩ জনকে গ্রেফতার করেছে তার মধ্যে একজন সুমনের অত্যান্ত কাছের বলে স্থারীয়রা জানান। ইতি পূর্বে সুমনের নানার পরিবারের ১১ জন সদস্য বিভিন্ন সময় পুলিশ র‌্যাব’র সাথে বন্ধুক যুদ্ধে নিহত হয়েছে বলে এলাকাবাসি জানিয়েছেন। এ সকল অন্যায়ের প্রতিবাদে এলাকাবাসি বিভিন্ন সময় মানব বন্ধন সংবাদ সম্মেলন,প্রতিবাদ সভা করেছেন।