রাজবাড়ী, ৮ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, বুধবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০

২১তম জাতীয় সম্মেলনের আগেই নতুন সদস্য সংগ্রহ করতে কেন্দ্র থেকে নির্দেশ

প্রকাশ: ২১ জুন, ২০১৯ ১০:২২ : অপরাহ্ণ

 

দলের ২১তম জাতীয় সম্মেলনের আগেই মেয়াদোত্তীর্ণ বিভিন্ন জেলা, উপজেলা ও ইউনিয়নের সম্মেলন শেষ করতে চায় আওয়ামী লীগ। একই সাথে নতুন ভোটারদের আওয়ামী লীগের আদর্শে অনুপ্রাণিত করে । তবে বিএনপি-জামাত থেকে যেন কেউ অনুপ্রবেশ করতে না পারে সেজন্য তৃণমূলকে সতর্ক থাকার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। এ লক্ষ্যে দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এরই মধ্যে তৃণমূলে বার্তা পাঠিয়েছেন।

আওয়ামী লীগের নির্ভরযোগ্য সূত্র জানিয়েছে, আসন্ন জাতীয় সম্মেলনের আগে মেয়াদোত্তীর্ণ বিভিন্ন ইউনিটের সম্মেলন শেষ করার নির্দেশ দিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। একই সাথে যেসব জায়গায় পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন হয়নি সেগুলোও গঠন করতে বলেছেন তিনি। ফলে হঠাৎ মেয়াদোত্তীর্ণ বিভিন্ন কমিটি গঠন ও আংশিক কমিটিগুলো পূর্ণাঙ্গের বিষয়ে তোড়জোড় শুরু হয়েছে।

আওয়ামী লীগের তৃণমূলের সম্মেলনের বিষয়ে দলের এক যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক জানিয়েছেন, গত বুধবার রাতে দলের সাধারণ সম্পাদক দপ্তরে তৃণমূলের চিঠি পাঠানোর নির্দেশনা দিয়েছেন। সে লক্ষ্যে এরই মধ্যে কাজ শুরু হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, আওয়ামী লীগের বেশির ভাগ জেলা-উপজেলা ও থানা-ইউনিয়ন কমিটির মেয়াদোত্তীর্ণ হয়েছে বেশ আগেই। অনেক থানা-উপজেলা কিংবা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের কমিটি সর্বশেষ কবে হয়েছে তাও ভুলতে বসেছেন খোদ ওই কমিটির সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকদের কেউ কেউ। আওয়ামী লীগের ৭৭টি সাংগঠনিক জেলার মধ্যে বেশির ভাগের মেয়াদোত্তীর্ণ হয়ে গেছে। সুনামগঞ্জ, নেত্রকোনা, চাঁদপুর, শরিয়তপুর, কুমিল্লা দক্ষিণ ও গাইবান্ধাসহ কিছু জেলা কমিটির মেয়াদ শেষ হয়েছে চলতি বছরের। আর খুলনা, যশোর, সাতক্ষিরা, বান্দরবান, রাঙ্গামাটি, নোয়াখালী, বাগেরহাট, কক্সবাজার ও মাগুরাসহ বেশকিছু জেলা কমিটির মেয়াদ শেষ হয়েছে আরো আগে। কিছু জেলা কমিটির মেয়াদ শেষ হয়েছে বেশ কিছু বছর আগে। এখন নতুন কমিটির অপেক্ষায় দিন কাটাচ্ছেন তরুণ নেতারা। আওয়ামী লীগের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী জেলা-উপজেলা এবং থানা ও ইউনিয়ন কমিটির মেয়াদ ৩ বছর। ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনের মাধ্যমে দলের কাউন্সিলররা তাদের নেতা নির্বাচিত করবেন। কিন্তু অনেক জেলায় কমিটির মেয়াদ পার হয়েছে ৫ আগে। অনেক উপজেলা ও ইউনিয়ন কমিটির মেয়াদ শেষ হয়েছে ৮-১০ বছর কিংবা তারও বেশি আগে। পুরোনো কমিটি দিয়ে ঢিলেঢালে চলছে দলের কার্যক্রম। গতিহীন হয়ে পড়ছে তৃণমূল, উঠে আসছে না নতুন নেতৃত্ব। ফলে নতুন কমিটি গঠন করতে কেন্দ্র থেকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটি গঠনের বিষয়ে দলের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান বলেন, আমাদের টার্গেট যেসব জায়গায় দীর্ঘদিন আগে কমিটির মেয়াদ শেষ হয়েছে সেগুলোর সম্মেলন আগে করার। এছাড়া অনেক জায়গায় পূর্নাঙ্গ কমিটি হয়নি, সেগুলোতেও নজর দিবো। কারণ জাতীয় সম্মেলনের আগে কাউন্সিলর ও ডেলিগেট লিস্ট প্রস্তুত করার বিষয় থাকে। তিনি বলেন, সম্মেলনকে সামনে রেখে এরই মধ্যে বিভিন্ন বিভাগে আমরা সফর করিছ, সেখান থেকেও আমরা নির্দেশনা দিয়েছি। এদিকে সম্মেলনের আগে নতুন সদস্য সংগ্রহ করতে তৃণমূলে বার্তা পাঠিয়েছে আওয়ামী লীগ। এ লক্ষ্যে তরুণ ও নবীন ভোটারদের আওয়ামী লীগের আদর্শে অনুপ্রাণিত করে দলে ভেড়ানোর কথা বলা হয়েছে। তবে বিএনপি-জামাতের কোন নেতাকর্মীকে দলে না ভেড়ানোর জন্য কঠোর নির্দেশনা রয়েছে।

সম্প্রতি রাজধানীতের এক সভায় দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এ বিষয়ে বলেন, আওয়ামী লীগে অনেক সাহসী, ত্যাগী ও দুঃসময়ের নেতা ছিলেন, যারা আমাদের ছেড়ে চলে গেছেন। কিন্তু হারিয়ে যাওয়াদের রিপ্লেসমেন্ট কি আমরা করতে পারছি? নতুন রিক্রুটমেন্ট কি আমরা করতে পারছি? নেত্রী বার বার তাগিদ দেওয়ার পরও আমরা সদস্য সংগ্রহ করিনি।

তিনি বলেন, গত নির্বাচনে যারা নৌকার পক্ষে কাজ করেছেন, তাদের সদস্য হিসেবে ধারণ করতে হবে, না হলে কিছুদিন পরে তারা ভুলে যাবে। নতুন কর্মী সৃষ্টি করতে হবে, শেখ হাসিনা এক-এগারোতে কারাগার থেকে বের হতে পারতেন না যদি কর্মীরা ঐক্যবদ্ধ না থাকতো।

Facebook Comments